১৩ বছরেই 'বৃদ্ধ' আহাদ

প্রকাশ: ৩০ আগস্ট ২০১৮      

মাগুরা প্রতিনিধি

মায়ের কোলে আহাদ

বয়োজিদের পর বিরল প্রজেরিয়া রোগে আক্রান্ত আরেক শিশুর সন্ধান মিলেছে মাগুরায়। বয়স ১৩ বছর। নাম আল আহাদ। 

এত অল্প বয়স, অথচ দেখতে অনেকটা বৃদ্ধের মতো। চেহারা ও শারীরিক গঠনে বয়ঃবৃদ্ধ মানুষের ছাপ স্পষ্ট। 

মাগুরা শহরতলির পুলিশ লাইন পাড়ার জাহিদুর রহমানের ছেলে সে। নানা শারীরিক সমস্যায় আক্রান্ত শিশুটিকে তার মা মঙ্গলবার দুপুরে মাগুরা ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট সদর হাসপাতালের সার্জারি বিভাগে চিকিৎসার জন্য নিয়ে আসেন। 

তবে চিকিৎসক বলেছেন, শিশুটি বিরল প্রজেরিয়া রোগে আক্রান্ত। 

শিশুটির মা আসমা সুলতানা জানান, তার দুই সন্তানের মধ্যে আল আহাদ বড়। জন্মের সময় তার চেহারা ও শারীরিক গড়ন অস্বাভাবিক ছিল। পরে মাগুরা ও ঢাকায় বিভিন্ন স্থানে চিকিৎসা করালেও সে আর স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসেনি। এখন তার পায়ের পাতার গিঁটে ক্ষত হয়েছে। সে জন্য মাগুরা সরকারি হাসপাতালে এসেছেন সার্জারি চিকিৎসক শফিউর রহমানের কাছে। 

এ বিষয়ে ডা. শফিউর রহমান বলেন, আহাদের চেহারা ও শারীরিক গঠন দেখে তিনি নিশ্চিত সে প্রজেরিয়া রোগে আক্রান্ত। 

একই হাসপাতালের মেডিসিন বিশেষজ্ঞও তার সঙ্গে একমত পোষণ করে বলেন, প্রজেরিয়া রোগ খুবই বিরল। 

আহাদের শারীরিক গড়ন অস্বাভাবিক হলেও সে সব কিছু বুঝতে পারে ও কথা বলতে পারে। তার কাছে জানতে চাইলে সে চাপা কণ্ঠে তার নাম ও বাবার নাম বলল। আরও বলল, সে একটি স্কুলে পড়ে। 

মাগুরা সদর হাসপাতালের মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ডা. দেবাশীষ বিশ্বাস বলেন, আল আহাদ জটিল প্রজেরিয়া রোগে আক্রান্ত। জিনগত সমস্যার কারণে শিশুরা বিরল এ রোগে অক্রান্ত হয়। এ রোগের চিকিৎসা এখনও নেই। প্রজেরিয়ায় আক্রান্তরা দ্রুত বার্ধক্যের দিকে ধাবিত হয়। যে কারণে তারা স্বল্পায়ু হয়ে থাকে।