থানায় ডেকে নারীকে নির্যাতন: উজিরপুরে অভিযুক্ত কনস্টেবল ক্লোজড

প্রকাশ: ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯      

বরিশাল ব্যুরো

নারী নির্যাতনের অভিযোগে বরিশালের উজিরপুর থানার কনস্টেবল জাহিদুল ইসলামকে জেলা পুলিশ লাইন্সে ক্লোজ করা হয়েছে। সোমবার তাকে ক্লোজ করা হয়। তবে একই ঘটনায় অভিযুক্ত উজিরপুর থানার ওসি শিশির কুমার পাল আছেন বহাল তবিয়তে। ঘটনার শিকার নারী জানান, অভিযোগ প্রত্যাহার করে নিতে ওসি শিশির কুমার তাকে চাপ প্রয়োগসহ ভয়ভীতি দেখাচ্ছেন। তিনি এ অভিযোগ পুলিশ রেঞ্জ ডিআইজিকেও জানিয়েছেন।

উজিরপুর সার্কেলের দায়িত্বপ্রাপ্ত অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আনোয়ার সাঈদ বলেন, এক নারীকে নির্যাতনের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে কনস্টেবল জাহিদকে ক্লোজ করা হয়েছে। এ ঘটনায় গঠিত তদন্ত দল রোববারও ঘটনাস্থলে গিয়ে তদন্ত করেছে। তাদের তদন্ত শেষ পর্যায়ে। দু-একদিনের মধ্যেই প্রতিবেদন দাখিল করে জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ভুক্তভোগী রাশিদা বেগম জানান, পুলিশের নির্যাতনের শিকার হয়ে তিনি উজিরপুর থেকে চলে এসে বরিশাল নগরীর গড়িয়ারপাড় এলাকায় বাসা ভাড়া নিয়েছেন। রোববার দুপুরে ওসি শিশির কুমার পাল ও কনস্টেবল জাহিদুল ইসলাম ক্ষমতাসীন দলের কিছু নেতাকে নিয়ে গড়িয়ারপাড় বাসস্ট্যান্ডের একটি ক্লাবে যান। সেখানে তাকে ডেকে আনা হয়। এ সময় ওসি তাকে অভিযোগ প্রত্যাহার করতে ভয়ভীতি দেখান। তিনি অভিযোগ প্রত্যাহার করতে অস্বীকার করলে ওসি কৌশল পরিবর্তন করে টাকার প্রলোভন দেখান। বিনিময়ে পুলিশ সুপার ও ডিআইজির কাছে গিয়ে বলতে বলেন যে, তারা (ওসি ও কনস্টেবল) নির্দোষ। 

রাশিদা বেগম জানান, তিনি বিষয়টি সোমবার ডিআইজিকে জনিয়েছেন। ওসি থানায় বহাল তবিয়তে থেকে সাক্ষীদের হুমকি দেওয়ায় ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শীরা সাক্ষী দিতে রাজি হন না বলে অভিযোগ করেন তিনি। তবে এসব অভিযোগের বিষয়ে ওসি শিশির কুমার পাল কোনো বক্তব্য দিতে রাজি হননি।

তদন্ত কমিটির প্রধান অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিএসবি) নাইমুল হক বলেন, তাদের তদন্তের সময়সীমা দেওয়া হয়েছে পাঁচ দিন। আগামীকাল মঙ্গলবার স্বল্পমাত্রায় তারা প্রতিবেদন দিতে পারেন। তিনি বলেন, ঘটনাস্থল উজিরপুরে গিয়ে এ পর্যন্ত ১০ থেকে ১২ জনের সাক্ষ্য নেওয়া হয়েছে। অভিযোগকারী নারীর সঙ্গে কনস্টেবল জাহিদুল ইসলামের তর্কাতর্কি হয়েছে। এ কারণে তাকে থানা থেকে প্রত্যাহার করা হয়। ওসি শিশির পাল প্রসঙ্গে তদন্ত কমিটির প্রধান অতিরিক্ত পুলিশ সুপার নাইমুল হক বলেন, তাকেও জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে।

সম্প্রতি রাশিদা বেগম তার স্কুলপড়ুয়া মেয়েকে অপহরণের অভিযোগ করতে উজিরপুর থানায় যান। কিন্তু ওসি শিশির কুমার পাল অভিযোগ নেননি। রাশিদা রেঞ্জ ডিআইজির সঙ্গে দেখা করে ওসির বিরুদ্ধে নালিশ দেন। এ কারণে তাকে থানায় ডেকে নিয়ে কনস্টেবল জাহিদুল ও ওসি শিশির কুমার পাল মারধর করেন এবং গালে সিগারেটের ছ্যাঁকা দেন বলে অভিযোগ করেছেন রাশিদা বেগম। এ ঘটনা নিয়ে গত শনিবার সমকালে সংবাদ প্রকাশ হয়।