ফেনীতে 'বন্দুকযুদ্ধে' নিহত ১

প্রকাশ: ১৬ অক্টোবর ২০১৯     আপডেট: ১৬ অক্টোবর ২০১৯      

নিজস্ব প্রতিবেদক, ফেনী ও সোনাগাজী প্রতিনিধি

প্রতীকী ছবি

ফেনীর সোনাগাজীতে পুলিশের সঙ্গে 'বন্দুকযুদ্ধে' ইকবাল হোসেন (৩২) নামের এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। মঙ্গলবার রাত আড়াইটার দিকে উপজেলার সদর ইউনিয়নের সাড়াইতকান্দি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত ইকবাল জেলা যুবদল সভাপতি জাকির হোসেন জসীমের ছোট ভাই এবং পূর্ব সাড়াইতকান্দি গ্রামের মৃত আবদুর রবের ছেলে। সে আন্তঃজেলা ডাকাত দলের সর্দার ছিল বলে দাবি পুলিশের।

পুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, ছাড়াইতকান্দি গ্রামে একদল ডাকাত ডাকাতির প্রস্তুতি নিচ্ছে এমন সংবাদের ভিত্তিতে ফেনীর ডিবি ও সোনাগাজী মডেল থানা পুলিশের একটি দল সেখানে অভিযান চালায়। এসময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে সংঘবদ্ধ ডাকাতদল পুলিশকে লক্ষ্য করে আতর্কিত গুলি চালায়। এসময় পুলিশও পাল্টা গুলি চালায়। ২০-২৫ মিনিট পুলিশ ও ডাকাতদের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধের পর ডাকাতরা পিছু হটে। পরে সেখান থেকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় ইকবালকে এবং তার পাশে একটি পাইপগান ও তাজা কার্তুজ উদ্ধার করে পুলিশ। আহত ইকবালকে উদ্ধার করে ফেনী সদর হাসপাতালে নেওয়ার পথে তার মৃত্যু হয়।

সোনাগাজী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মঈন উদ্দিন আহমদ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, ডাকাত সর্দার ইকবালে বিরুদ্ধে সোনাগাজী থানায় ৪টি ডাকাতির মামলাসহ জেলার অন্য থানাগুলোতে বহু ডাকাতির মামলা রয়েছে। পুলিশের কেস ডকেটে তার বিরুদ্ধে ১২টি মামলার রেকর্ড রয়েছে।

এদিকে ইকবালের নিহতের খবরে এলাকাবাসীর মধ্যে স্বস্তি ফিরেছে। এলাকাবাসী জানায়, তার অপকর্মে সোনাগাজীর সদর ইউনিয়নসহ পূর্বাঞ্চলের মানুষ অতিষ্ঠ ছিলো।

প্রসঙ্গত সর্বশেষ চলতি বছরের ২৫ জুলাই তত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা ড. সিএস করিমের ছাড়াইতকান্দি গ্রামের বাড়িতে ডাকাতির ঘটনায় ইকবালের নাম উঠে আসে। গ্রেফতারকৃত ৪ জন ডাকাত তার নেতৃত্বে ডাকাতি করেছে মর্মে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে। গত ৬ মাস পূর্বে দীর্ঘদিন সাজা খেটে জেলখানা থেকে মুক্তি পেয়েছিল ইকবাল। কারাগার থেকে মুক্তি পাওয়ার পর থেকে সে ডাকাতদলের সদস্যদের সংগঠিত করে ফেনী জেলার বিভিন্ন এলাকায় ডাকাতি করে আসছে। পুলিশের দাবি ইকবাল জেলখানায় থেকেও তার শীষ্যদের দিয়ে ডাকাতি করাতো। এর আগে একাধিক ঘটনায় তার বাড়ি থেকে ডাকাতির মালামাল উদ্ধার করা হয়েছিল।