পর্যটন

সিলেটে আগ্রহ বাড়ছে ট্যুরিস্ট বাসে

প্রকাশ: ২৩ অক্টোবর ২০১৯       প্রিন্ট সংস্করণ     

ফয়সল আহমদ বাবলু, সিলেট

পর্যটনের সম্ভাবনাময় অঞ্চল সিলেট। প্রতিবছরই এখানে বাড়ছে পর্যটকের সংখ্যা। পর্যটন কেন্দ্র ঘিরে দিন দিন বাড়ছে মানুষের ব্যস্ততা। গড়ে উঠছে হোটেল-মোটেলসহ নানা প্রতিষ্ঠান। এ অবস্থায় পর্যটন ব্যবসার পরিধি বাড়াতে এবং পর্যটকদের সুবিধার কথা চিন্তা করে সিলেটে প্রথমবারের মতো চালু করা হয়েছে ট্যুরিস্ট বাস। গত ৮ অক্টোবর এটি উদ্বোধন করা হয়। ট্যুরিস্ট বাসের প্রতি আগ্রহী হয়ে উঠছেন পর্যটকরা। কিন্তু বাসের সংখ্যা কম থাকায় কিছুটা সমস্যা হচ্ছে বলে তারা জানিয়েছেন।

নগরীর বিভিন্ন স্থানে দেখা গেছে, বাসের জন্য পর্যটকরা অপেক্ষা করছেন। অনেকেই অনলাইনে তথ্য জেনে ভিড় করছেন এসব এলাকায়। কিন্তু বাসের সংখ্যা কম হওয়ায় অনেকেই আগের মতো অটোরিকশা ও লেগুনায় চড়ে বিভিন্ন পর্যটন কেন্দ্রে যান।

ঢাকার লালমাটিয়া এলাকা থেকে আসা ব্যবসায়ী আহমেদ সালেহীন মোস্তাফা সমকালকে বলেন, বিভিন্ন অনলাইন থেকে ট্যুরিস্ট বাসের খবর নিয়ে কোর্ট পয়েন্ট এলাকায় যাই। সেখানে যাওয়ার পর অনেকক্ষণ অপেক্ষা করে একটি বাস পাই।

কিন্তু আগে থেকেই বাসে ছিলেন অনেক পর্যটক। তার পরিবারের সদস্য সংখ্যা বেশি থাকায় ওই বাসে আর উঠতে পারেননি। পরে তিনি একটি লেগুনা নিয়ে রাতারগুল যান।

বাসে থাকা আরেক যাত্রী বলেন, বহির্বিশ্বে এমন পর্যটকবাহী বাস রয়েছে। সিলেটে এই প্রথম দেখলাম এমন বাস। এখন অনেক আনন্দিত।

সিলেটে প্রতিবছরই বাড়ছে পর্যটকের ভিড়। তাই পর্যটকের কথা মাথায় রেখে সিটি মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী সম্প্রতি ট্যুরিস্ট বাস চালু করার সিদ্ধান্ত নেন। সিলেট ট্যুরস অ্যান্ড ট্রাভেলস কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলাপ করে জানা গেছে, প্রাথমিকভাবে বিছনাকান্দি ও জাফলং যেতে আগ্রহী পর্যটকরা সিটি পয়েন্ট থেকে ট্যুরিস্ট বাসে উঠতে পারবেন। আম্বরখানা, ধোপাগুল, সালুটিকর হয়ে বিছনাকান্দি যাবে একটি বাস। অন্যদিকে সাহেববাজার, রাতারগুল, হরিপুর বাজার, লালাখাল হয়ে জাফলং যাবে অন্য একটি বাস।

পর্যটকরা জানান, এ বাস চালু হওয়ায় অনেকটা সুবিধা হয়েছে। এখন থেকে তাদের অতিরিক্ত অর্থ খরচ করে যেতে হবে না পর্যটন স্পটগুলোতে। এ জন্য তারা ট্যুরিস্ট বাস আরও বাড়ানোর দাবি জানান।

ট্যুরিস্ট বাসের কর্মকর্তারা জানান, প্রথমবারের মতো চালু হওয়া ট্যুরিস্ট বাসে রয়েছে এসি ও ওয়াই-ফাই সুবিধা। বাসের কোনোটিতে ২২টি, কোনোটিতে ২৪টি আসন রয়েছে।

সিলেট ট্যুরস অ্যান্ড ট্রাভেলস সার্ভিসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল বলেন, প্রাথমিকভাবে আমরা দুটি ট্যুরিস্ট বাস চালু করেছি। পর্যটকরা এতে আগ্রহী হয়ে উঠলে আরও বাড়ানো হবে। তখন সমস্যা হবে না বলেও তিনি জানান।