চুরির কথা বলে দেওয়ায় স্কুলছাত্রকে খুন করে ৩ বন্ধু

প্রকাশ: ২৭ অক্টোবর ২০১৯      

জামালপুর প্রতিনিধি

ছবি: গুগল

জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জে আলোচিত স্কুলছাত্র বুলবুল হাসানকে মাদকাসক্ত তিন বন্ধু শ্বাসরোধে হত্যা করে। পরে লাশ একটি ডোবায় লুকিয়ে রাখে। মাদকাসক্ত তিন বন্ধু ছিল ছিঁচকে চোর। তাদের চুরির কথা প্রকাশ করে দেওয়ায় তিনজন মিলে খুন করে বুলবুলকে।

শনিবার সন্ধ্যায় জামালপুরের অতিরিক্ত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে সালাম মিয়া নামে এক ঘাতক ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিলে হত্যার রোমহর্ষক এ ঘটনা উঠে আসে।

নিহত বুলবুল উপজেলার সানন্দবাড়ী এলাকার মাস্টারপাড়া গ্রামের জহুরুল ইসলামের ছেলে। সে স্থানীয় এক স্কুলের পঞ্চম শ্রেণির ছাত্র ছিল।

জামালপুর পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) সূত্র জানায়, গত ২৫ আগস্ট বাড়ির কাছেই একটি পরিত্যক্ত ডোবা থেকে বুলবুলের লাশ উদ্ধার করা হয়। ওই দিনই তার মা আকলিমা আক্তার বাদী হয়ে অজ্ঞাতপরিচয় আসামিদের বিরুদ্ধে দেওয়ানগঞ্জ থানায় মামলা করেন। গত ৪ সেপ্টেম্বর পিবিআই স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে মামলা তদন্তের দায়িত্ব নেয়। ৫১ দিনের তদন্তে বেরিয়ে আসে বুলবুল হত্যার রোমহর্ষক কাহিনী। সোর্সের মাধ্যমে খবর পেয়ে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই শামীম কবীর রাঙামাটির লংগদু উপজেলার ভাইবোনছড়া টিলা থেকে সালাম মিয়াকে শুক্রবার গ্রেফতার করে।

পিবিআইর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সীমা রানী সরকার বলেন, সালাম, আলামিন ও মনির হাসানের সঙ্গে ছিল বুলবুল হাসানের বন্ধুত্ব। তারা তিনজন ছিল ছিঁচকে চোর। পাশাপাশি তারা গাম নেশায় আসক্ত ছিল। তিন বন্ধুর চুরি ও নেশার বিষয় প্রকাশ করে দিত বুলবুল। এতেই বুলবুলের ওপর ক্ষুব্ধ হয় তারা। তিন বন্ধু মিলে তাকে হত্যার পরিকল্পনা করে। সে অনুযায়ী গত ২৪ আগস্ট দেওয়ানগঞ্জের ডাকাতিয়াপাড়ার একটি ধানক্ষেতে নিয়ে বুলবুলকে নেশাজাতীয় কিছু খাওয়ায়। সে অচেতন হয়ে পড়লে তিনজন মিলে তাকে শ্বাসরোধে হত্যা করে।