ঘুমন্ত স্ত্রীকে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা

প্রকাশ: ০৩ নভেম্বর ২০১৯      

নোয়াখালী প্রতিনিধি

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন পারুল -সমকাল

বাবার বাড়ি থেকে যৌতুক আনতে অপারগতা প্রকাশ করায় ঘুমিয়ে থাকা স্ত্রীকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে হত্যাচেষ্টার অভিযোগ উঠেছে এক যুবকের বিরুদ্ধে।

রোববার ভোর ৪টার দিকে নোয়াখালী সদর উপজেলার অশ্বদিয়া ইউনিয়নের বক্তারপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। 

গুরুতর আহতাবস্থায় চার সন্তানের জননী শাহিদা ইসলাম পারুলকে (২৫) উদ্বার করে সকালে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ঘটনার পর থেকে পেশায় সিএনজি চালক স্বামী নিজাম উদ্দিন পলাতক। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে। 

স্থানীয়রা জানায়, নোয়াখালী সদর উপজেলার অশ্বদিয়া ইউনিয়নের বক্তারপুর গ্রামের নিজাম উদ্দিনের সঙ্গে একই গ্রামের মো. খালেদ হোসেনের মেয়ে শাহিদা ইসলাম পারুলের ১০ বছর আগে বিয়ে হয়। তাদের সংসারে চার ছেলে সন্তান রয়েছে। 

আহত পারুলের মা রেজিয়া খাতুন জানান, দীর্ঘদিন থেকে নিজাম ইয়াবা সেবন করে আসছিলেন। বিয়ের পর থেকে নিজাম পারুলকে তার বাবার বাড়ি থেকে একাধিকবার যৌতুক আনার জন্য চাপ প্রয়োগ করে। পারুল বাবার বাড়ি থেকে যৌতুক আনতে অপারগতা প্রকাশ করলে তাকে শারীরিক ও মানসিক ভাবে নির্যাতন শুরু করেন নিজাম। 

পারুল জানান, শনিবার দিবাগত রাত সাড়ে ৩টার সময় নিজাম উদ্দিন নেশা করে ঘরে ঢুকেন। এরপর ভাত খেয়ে ঘরের ভিতরে পায়চারি করেন। কোন এক সময় পারুল ঘুমিয়ে পড়েন। ভোর আনুমানিক সাড়ে ৪টার সময় ধারালো দা দিয়ে নিজাম উদ্দিন তার ওপর হামলা চালায়। এসময় নিজাম উদ্দিন পারুলের মাথা ও গালের দুইপাশে এবং হাতে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে আহত করেন। পারুলের চিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে আসলে নিজাম পালিয়ে যান। পরে তাকে উদ্বার করে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

পারুলের মা অভিযোগ করে বলেন, যৌতুক দিতে না পারার কারণে আমার মেয়েকে ঘুমন্ত অবস্থায় কুপিয়ে ও গলা কেটে হত্যার চেষ্টা করেছে নিজাম উদ্দিন।

নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার সৈয়দ মহি উদ্দিন আবদুল আজিম বলেন, আহত গৃহবধূর মাথা ও গালের দুইপাশে এবং হাতে একাধিক সেলাই দেওয়া হয়েছে। তার চিকিৎসা চলছে। 

সুধারাম মডেল থানার ওসি নবীর হোসেন বলেন, এঘটনায় আহত গৃহবধূর পরিবারের পক্ষ থেকে মামলার প্রস্তুতি চলছে। হত্যাচেষ্টার অভিযুক্ত নিজাম উদ্দিনকে ধরতে পুলিশ পাঠানো হয়েছে।