কসবায় ট্রেন দুর্ঘটনা

আটকেপড়া যাত্রীদের দেওয়া হচ্ছে খাবার ও পানি

প্রকাশ: ১২ নভেম্বর ২০১৯     আপডেট: ১২ নভেম্বর ২০১৯      

নিজস্ব প্রতিবেদক, ব্রাক্ষ্মণবাড়িয়া ও কসবা সংবাদদাতা

ট্রেন দুর্ঘটনায় আটকে পড়েছেন অনেক যাত্রী

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবার ট্রেন দুর্ঘটনায় আটকেপড়া যাত্রীদের খাবার, ওষুধ ও পানি সরবরাহ করা হচ্ছে। আইনমন্ত্রী আনিসুল হকের নির্দেশে স্থানীয় আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতাকর্মীরা আটকেপড়া যাত্রীদের খাবার ও পানি সরবরাহ করছেন। 

এছাড়া উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে তথ্যকেন্দ্র খোলা হয়েছে। কোনো হতাহতের পরিচয় পেলেই জানানো হচ্ছে তথ্যকেন্দ্র থেকে।

কসবা উপজেলা চেয়ারম্যান রাশেদুল কায়সার ভূঁইয়া জীবন জানান, আইনমন্ত্রী নির্দেশ দিয়েছেন যাত্রীদের সুবিধামতো স্থানে পৌঁছে দেওয়ার জন্য যেন পর্যাপ্ত গাড়ির ব্যবস্থা করা হয়। আইনমন্ত্রীর বাড়ি এই কসবা উপজেলায়।

এ ঘটনায় তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন রেল সচিব মোহাম্মদ মোফাজ্জল হোসেন। এছাড়া নিহত প্রত্যেকের পরিবারকে ২৫ হাজার টাকা করে দেওয়া হবে তিনি জানিয়েছেন। 

সোমবার রাত পৌনে ৩টার দিকে উপজেলার ঢাকা-চট্টগ্রাম রেলপথের মন্দবাগ রেলওয়ে স্টেশনের ক্রসিংয়ে আন্তঃনগর উদয়ন এক্সপ্রেস ও তূর্ণা নিশীথা ট্রেনের মধ্যে সংঘর্ষে ১৬ জন নিহত হয়েছেন।

দুর্ঘটনায় উদয়নের দুটি বগি দুমড়েমুচড়ে যায়। এতে ঢাকার সঙ্গে সিলেট ও চট্টগ্রামের রেল যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে।

রেলওয়ে পুর্বাঞ্চলীয় প্র্রধান প্রকৌশলী শফিক তুহিন জানান, তিন থেকে চার ঘণ্টা লাগবে উদ্ধারকাজ শেষ করতে।