ঢাকা শনিবার, ১৮ মে ২০২৪

টাঙ্গাইল

ট্রাক শ্রমিক ইউনিয়ন অফিসে হামলা, নেতাদের মারধর

ট্রাক শ্রমিক ইউনিয়ন অফিসে  হামলা, নেতাদের মারধর

জেলা ট্রাক শ্রমিক ইউনিয়ন অফিসে হামলা ও ভাঙচুরের ঘটনা ঘটে - সমকাল

টাঙ্গাইল প্রতিনিধি

প্রকাশ: ৩১ আগস্ট ২০২৩ | ১৫:১৩ | আপডেট: ৩১ আগস্ট ২০২৩ | ১৫:১৩

টাঙ্গাইল জেলা ট্রাক শ্রমিক ইউনিয়ন অফিসে হামলা ও ভাঙচুরের ঘটনা ঘটেছে। এ ছাড়া সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে মারধর করা হয়েছে। 

বৃহস্পতিবার দুপুরে শহরের ঢাকা রোডের নগরজালফৈ বাইপাস এলাকায় জেলা ট্রাক শ্রমিক ইউনিয়ন অফিসের সামনে মানববন্ধন করা নিয়ে এই ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, চলতি বছরের ৯ মার্চ টাঙ্গাইল জেলা ট্রাক শ্রমিক ইউনিয়নের ত্রিবার্ষিক নির্বাচন হয়। ওই নির্বাচনে অন্য কোনো প্যানেল না থাকায় বালা-মাহতাব পরিষদকে এককভাবে বিজয়ী ঘোষণা করা হয়। কিন্তু টাঙ্গাইল জেলা ট্রাক শ্রমিক ইউনিয়নের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সোবাহান মিয়াসহ তাঁর অনুসারীরা নির্বাচনের ফল মেনে নেয়নি। ইতোমধ্যে কমিটি বাতিলের দাবিতে একাধিকবার মানববন্ধন ও সংবাদ সম্মেলন করেছেন তারা। এরই ধারাবাহিক কর্মসূচির অংশ হিসেবে বৃহস্পতিবার দুপুরে ট্রাক শ্রমিক ইউনিয়নের সামনে মানববন্ধন করেন সোবাহানের অনুসারীরা।

কর্মসূচির এক পর্যায়ে বর্তমান কমিটির সভাপতি বালা মিয়া ও সাধারণ সম্পাদক আবু বক্কর সিদ্দিক মাহতাব হোসেনসহ কয়েজন উপস্থিত হলে মানববন্ধনে উত্তেজনা তৈরি হয়। এক পর্যায়ে তাদের মধ্যে বাগ্বিতণ্ডা ও হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। এ সময় সাধারণ সম্পাদক মাহতাবের ওপর হামলা চালান সোবাহানের নেতৃত্বে মানববন্ধনে আসা শ্রমিকরা। তাঁকে উদ্ধার করতে গিয়ে মারধরের শিকার হন সভাপতি বালা মিয়া ও দপ্তর সম্পাদক শাহিন আলী। এ ছাড়া উত্তেজিত লোকজন ট্রাক শ্রমিক ইউনিয়নের অফিসে ঢুকে ভাঙচুর চালায়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। বর্তমানে দুই পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে। যে কোনো সময় রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশঙ্কা রয়েছে।

টাঙ্গাইল জেলা ট্রাক শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মাহতাব হোসেন জানান, সাবেক সাধারণ সম্পাদক সোবাহানের বিরুদ্ধে ট্রাক শ্রমিক ইউনিয়নের ৬১ লাখ টাকা আত্মসাতের মামলা হয়েছে। পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) তদন্তে অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে। অপরাধ ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করার জন্য মানববন্ধন ও হামালা করা হয়।

সংগঠনের সভাপতি বালা মিয়ার ভাষ্য, ৩৫ বছর ধরে ট্রাক শ্রমিক ইউনিয়নের সঙ্গে জড়িত তিনি। সাধারণ শ্রমিকের ভোটেই বারবার সাধারণ সম্পাদক ও সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন। সুনামের সঙ্গে সংগঠন পরিচালনা করেছেন। সাবেক সাধারণ সম্পাদক সোবাহানের অভিযোগ মিথ্যা। 

সাবেক সাধারণ সম্পাদক সোবাহান মিয়া বলেন, ‘গঠনতন্ত্রের কোনো নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করেই বর্তমান কমিটি গঠন করা হয়েছে। আমরা এই কমিটি মানি না। এ ছাড়া আমার বিরুদ্ধে টাকা আত্মসাতের অভিযোগ সত্য নয়।’

টাঙ্গাইল সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু ছালাম মিয়া জানান, হামলা ও ভাঙচুরের বিষয়ে কেউ লিখিত অভিযোগ দেয়নি। অভিযোগ পেলে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আরও পড়ুন

×