ঢাকা সোমবার, ২০ মে ২০২৪

ঋণের কিস্তি আনতে গিয়ে যুবক খুন

ঋণের কিস্তি আনতে গিয়ে যুবক খুন

প্রতীকী ছবি

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি

প্রকাশ: ৩১ আগস্ট ২০২৩ | ১৬:৫২ | আপডেট: ৩১ আগস্ট ২০২৩ | ১৬:৫২

লক্ষ্মীপুর সদরে ক্ষুদ্রঋণের কিস্তি নিয়ে দ্বন্দ্বের জেরে ইউনুছ আলী নামে এক যুবক খুন হয়েছেন। গত ২৪ আগস্ট থেকে তিনি নিখোঁজ ছিলেন। পুলিশ সন্দেহভাজন এক ব্যক্তিকে আটকের পর তাঁর দেওয়া তথ্যে বৃহস্পতিবার সকালে পৌরসভার ৭ নম্বর ওয়ার্ডের দক্ষিণ মজুপুর গ্রামের কালু হাজি সড়কসংলগ্ন দোকানের পেছন থেকে মাটিচাপা লাশ উদ্ধার করে।

ইউনুছ আলীর বাড়ি চাঁদপুর। বাবার নাম আব্দুল রশিদ মোল্লা। তিনি পরিবার নিয়ে লক্ষ্মীপুর পৌরসভার ৭ নম্বর ওয়ার্ডের সমসেরাবাদ গ্রামের গণি হেডমাস্টার সড়কে বসবাস করতেন।

এ ঘটনায় পুলিশ জাবেদ হোসেন নামের নির্মাণ শ্রমিক ও চা দোকানিকে আটক করেছে। তিনি একই ওয়ার্ডের কালু হাজি সড়কের মিঝি বাড়ির সফিকুর রহমানের ছেলে।

পুলিশ ও নিহতের পরিবার জানায়, ইউনুছ আলী ‘গ্রামীণ বাংলা’ নামে একটি মাল্টিপারপাস প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে ক্ষুদ্রঋণ দিতেন। তাঁর কাছ থেকে জাবেদ হোসেন দৈনিক ২৫০ টাকা কিস্তি পরিশোধের শর্তে ২০ হাজার টাকা ঋণ নেন। কয়েকটি কিস্তি বকেয়া পড়লেও দিতে টালবাহানা করছিলেন। ২৪ আগস্ট রাতে ইউনুছ কিস্তির টাকা আনতে জাবেদের বাড়ির সামনে তাঁর চা দোকানে যান। এ সময় টাকা নিয়ে দু’জনের মধ্যে কথা-কাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে জাবেদ লাঠি দিয়ে ইউনুছের মাথায় আঘাত করলে ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয়। পরে দোকানের পেছনে লাশ পুঁতে রাখেন জাবেদ এবং ইউনুছের ব্যবহৃত মোটরসাইকেল ও মোবাইল ফোন পাশের পুকুরে ফেলে দেন।

লক্ষ্মীপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক্রাইমস অ্যান্ড অপস) হাসান মোস্তফা জানান, স্ত্রীর জিডি তদন্ত করতে গিয়ে তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তায় পুলিশ জানতে পারে ইউনুছ আলী ঘটনার রাতে কালু হাজি সড়কে জাবেদের কাছে গিয়েছিলেন। এরপর থেকে তাঁর সন্ধান পাওয়া যাচ্ছিল না। আটকের পর জিজ্ঞাসাবাদে জাবেদ হত্যা করে লাশ পুঁতে রাখার কথা স্বীকার করে। ময়নাতদন্তের জন্য সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে লাশ। পুকুর থেকে মোটরসাইকেলটি তোলা হয়েছে। জাবেদের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা প্রক্রিয়াধীন বলে জানান তিনি।


আরও পড়ুন

×