ঢাকা রবিবার, ১৯ মে ২০২৪

অসহায়ের আশ্রয়, সম্বলহীনের সহায়

অসহায়ের আশ্রয়, সম্বলহীনের সহায়

টিম রাজবাড়ী ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে শিক্ষাবঞ্চিত শিশুদের জন্য স্কুল-সমকাল

সৌমিত্র শীল চন্দন, রাজবাড়ী

প্রকাশ: ৩১ আগস্ট ২০২৩ | ১৮:০০ | আপডেট: ৩১ আগস্ট ২০২৩ | ২৩:৩১

রাজবাড়ী সদর উপজেলার দাদশী ইউনিয়নের সিঙ্গা গ্রামের বাসিন্দা শুকুর আলী (৬৫)। রিকশা চালাতে গিয়ে দুর্ঘটনায় হারিয়েছিলেন কর্মক্ষমতা। খেয়ে-না খেয়ে দিন কাটছিল তাদের। বিষয়টি জানতে পেরে তাঁর বাড়ির পাশে একটি মুদি দোকান করে দেয় টিম রাজবাড়ী ফাউন্ডেশন। মাত্র ছয় মাসে শুকুর আলী এখন স্বাবলম্বী। দোকানে বসে যে টাকা আয় করেন, তা দিয়ে ভালোভাবে চলে যায় সংসার। টিম রাজবাড়ী ফাউন্ডেশন শুকুর আলীর মতো অনেকের পাশে যেমন দাঁড়িয়েছে, তেমনি শিক্ষা বিস্তারেও উদ্যোগী হয়েছে।

রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার দুর্গম চর কুশাহাটা। শহর থেকে ২৫ কিলোমিটার দূরে হলেও অর্ধেক যাওয়া যায় সড়কপথে, বাকিটা নৌকায়। নৌকা মেলে না সব সময়। দিনে এক বা দু’বার সেখানে নৌকা যায়। সেখানের শিশুরা ছিল শিক্ষাবঞ্চিত। টিম রাজবাড়ী ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে ওই গ্রামের শিশুদের পড়াশোনার জন্য একটি স্কুলঘর করে দেওয়া হয়েছে। শীতকালে শিশুদের দেওয়া হয় সোয়েটার আর বড়দের কম্বল।

মাত্র এক বছর আগে রাজবাড়ী শহরের কয়েকজন উদ্যোগী হয়ে গঠন করেছিলেন সামাজিক সংগঠন টিম রাজবাড়ী ফাউন্ডেশন। এ সময়ের মধ্যে সংগঠনটির মানবিক ও সেবামূলক কাজ সমাদৃত হয়েছে সবার কাছে। স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনটির স্লোগান– ‘সেবা সহযোগিতা সম্প্রীতি, আমরা টিম রাজবাড়ী’। ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সবাইকে সহযোগিতা করে যাচ্ছে তারা। শারীরিক প্রতিবন্ধী, আগুনে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের পাশে নিয়মিতই সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিচ্ছে তারা। শুকুর আলী জানান, একটা সময় তাঁর মনে হয়েছিল, এ জীবন বয়ে বেড়ানো কঠিন। হতাশ হয়ে পড়েছিলেন তিনি ও তাঁর পরিবারের সদস্যরা। সংসারে কেউ কর্মক্ষম ছিল না। এর মধ্যে টিম রাজবাড়ী ফাউন্ডেশন তাঁকে দোকান করে দেয়। দোকান এখন খুবই ভালো চলছে।

সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক আহসান হাবীব রাজবাড়ী সরকারি কলেজের সহকারী অধ্যাপক। তিনি জানান, গত রোজার ঈদে তারা ৫২টি হতদরিদ্র পরিবারকে এক মাসের খাদ্যসামগ্রী দিয়েছেন। যাতে সিয়াম সাধনার মাসে তারা সাবলীলভাবে ধর্ম পালন করতে পারে। রাজবাড়ী লোকোশেড এলাকায় দু’জন প্রতিবন্ধীকে দুটি হুইলচেয়ার দিয়েছেন। তাদের মধ্যে একজনকে একটি দোকান করে দিয়েছেন। যাতে তিনি ব্যবসা করে স্বাবলম্বী হতে পারেন। রাজবাড়ীর কালুখালী উপজেলার সাওরাইল ইউনিয়নের ঘিকমলায় ১০টি পরিবারের ঘরবাড়ি পুড়ে যায়। সংগঠনের পক্ষ থেকে তাদের টিন দেওয়া হয়। রাজবাড়ী জেলার বাইরেও তারা সহযোগিতা করেছেন।

সংগঠনটির সভাপতি জয়ন্ত কুমার দাস বলেন, জাতি, ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সবার পাশে দাঁড়ানোটা তারা কর্তব্য মনে করেন। তারা এ কর্তব্য পালন করে যেতে চান।

আরও পড়ুন

×