ঢাকা সোমবার, ০৪ মার্চ ২০২৪

শিলনোড়ার আঘাতে স্ত্রীকে হত্যা

শিলনোড়ার আঘাতে স্ত্রীকে হত্যা

গ্রেপ্তার জাহিদুল ইসলাম। ফাইল ছবি

মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি

প্রকাশ: ১০ সেপ্টেম্বর ২০২৩ | ১৫:৫৯ | আপডেট: ১০ সেপ্টেম্বর ২০২৩ | ১৫:৫৯

মানিকগঞ্জের সদরে পারিবারিক কলহের জের ধরে স্ত্রীকে নৃশংসভাবে হত্যার অভিযোগে স্বামীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। শনিবার রাতে উপজেলা উকিয়ারা গ্রামে এ হত্যাকাণ্ড ঘটে। 

নিহত তাছলিমা আক্তারের (৩০) স্বজনরা জানিয়েছেন, শিলনোড়া দিয়ে তাঁকে মাথায় আঘাত করেন স্বামী জাহিদুল ইসলাম (৩৫)। এতে ঘটনাস্থলেই মারা যান তাছলিমা।

তাছলিমা সদর উপজেলার জাগীর ইউনিয়নের উকিয়ারা গ্রামের আহম্মদ আলীর মেয়ে। ১০ বছর আগে একই গ্রামের জাহিদুলের সঙ্গে পারিবারিকভাবে বিয়ে হয় তাঁর। জাহিদুল সাটুরিয়া উপজেলা পরিষদের অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটর পদে কর্মরত।

নিহত নারীর ভাই লাল মিয়া জানিয়েছেন, এ দম্পতির সাত ও চার বছর বয়সী দুই ছেলে রয়েছে। এক বছর আগেও পরিবার থেকে স্বর্ণের জন্য ভগ্নিপতি জাহিদুলকে এক লাখ টাকা দেওয়া হয়। শনিবার বিকেলে স্ত্রী-সন্তানদের নিয়ে জাহিদুল বেড়াতে যান। রাতে বাসায় ফেরার পর স্ত্রীর সঙ্গে তাঁর ঝগড়া হয়। পরে রাত সাড়ে ৯টার দিকে তাছলিমার মাথায় মসলা বাটায় ব্যবহৃত শিলনোড়া দিয়ে আঘাত করেন জাহিদুল। এতে ঘটনাস্থলেই মারা যান তাছলিমা। 

লাল মিয়ার ভাষ্য, সংবাদ পেয়ে ওই বাড়িতে গিয়ে দেখেন, ঘরের খাটে বোনের মরদেহ পড়ে আছে। বাইরে স্বামী জাহিদুলকে গ্রামের লোকজন বেঁধে রেখেছেন।

জাগীর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) ১ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য রাজা মিয়া বলেন, স্ত্রীকে হত্যার কারণে জাহিদুলকে বেঁধে রাখার সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থলে যান। পরে পুলিশ ও নিহতের বাড়িতে বিষয়টি জানান। পুলিশ জাহিদুলকে আটক করে ও লাশ থানায় নিয়ে যায়।

প্রাথমিক তদন্তে পুলিশ নিশ্চিত হয়েছে জাহিদুল পারিবারিক কলহের জের ধরে স্ত্রীকে শিলনোড়া দিয়ে একাধিক আঘাত করে হত্যা করেন। বিষয়টি নিশ্চিত করে মানিকগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুর রউফ সরকার বলেন, উকিয়ারা গ্রাম থেকে ওই ব্যক্তিকে রাতেই আটক করেন। নিহত তাছলিমার লাশ ময়নাতদন্তের জন্য মানিকগঞ্জ ২৫০ শয্যা হাসপাতালে পাঠানো হয়। রোববার তাঁর বাবা আহম্মদ আলী মামলা করেন। এতে গ্রেপ্তার দেখিয়ে জাহিদুলকে এদিন আদালতে পাঠানো হয়। বিকেলে লাশ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করেছেন। 


আরও পড়ুন

×