ঢাকা সোমবার, ০৪ মার্চ ২০২৪

পরিবার নিয়ে মেসে থাকেন সার কারখানার এমডি!

পরিবার নিয়ে মেসে থাকেন সার কারখানার এমডি!

আনোয়ারা (চট্টগ্রাম) সংবাদদাতা

প্রকাশ: ২১ সেপ্টেম্বর ২০২৩ | ১৫:৪৪ | আপডেট: ২১ সেপ্টেম্বর ২০২৩ | ১৬:৪৩

চট্টগ্রামের আনোয়ারায় ডিএপি ফার্টিলাইজার কোম্পানির লিমিটেড (ডিএপিএফসিএল) কারখানায় চলতি বছরের ১ জানুয়ারি ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) পদে যোগদান করেন আবদুল হাকিম। সরকারি নিয়মে ৪০ শতাংশ বাড়ি ভাড়াসহ রাষ্ট্রায়ত্ত এই সার কারখানায় এমডির জন্য আছে আবাসন ব্যবস্থা। কিন্তু নির্ধারিত বাড়িতে থাকেন না তিনি।

পরিবার-পরিজন নিয়ে অবস্থান করছেন প্রতিষ্ঠানটির গেস্ট হাউসে। ভাড়ার টাকা ফাঁকি দিতে তিনি নথিপত্রে মেসে থাকার কথা উল্লেখ করেছেন। তাঁর এই প্রতারণার বিষয়টি এখন কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মুখে মুখে।

জানা গেছে, সব মিলিয়ে ডিএপিএফসিএলের এমডির বেতন ১ লাখ ২৯ হাজার টাকার মতো। নির্ধারিত বাসভবনে থাকলে তাঁর বেতন থেকে মাসে ২৯ হাজার টাকা কর্তন করার নিয়ম আছে। কিন্তু কোম্পানির গেস্ট হাউসের একটি রুমে ব্যাচেলর হিসেবে থাকার দাবি করে তিনি ভাড়া দিচ্ছেন ১ হাজার ৪৮০ টাকা করে, যা সরকারের সঙ্গে স্পষ্ট প্রতারণা ও আর্থিক অনিয়ম। 

সূত্র জানায়, বাংলাদেশ কেমিকেল ইন্ডাস্ট্রিজ করপোরেশন (বিসিআইসি) নিয়ন্ত্রণাধীন দেশের একমাত্র ডিএপি সার উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান ডিএপিএফসিএল। এটি ২০০১ সালের ১ মে প্রতিষ্ঠিত হয়। নিয়মানুযায়ী কারখানায় কর্মরত কর্মচারীদের জন্য রয়েছে আবাসনের ব্যবস্থা। পাশাপাশি রয়েছে অতিথিদের জন্য নামমাত্র ভাড়ায় গেস্ট হাউস। এসব আবাসনে বসবাস করলে বেতন থেকে বাড়ি ভাড়া বাবদ নির্ধারিত পরিমাণ টাকা কাটা হয়। 

কারখানার নথিতে দেখা যায়, প্রতিষ্ঠানটির এমডি তাঁর নির্ধারিত বাসভবনে বসবাস করলে তাঁকে ভাড়া বাবদ দিতে হবে ২৯ হাজার ৭৬০ টাকা। অন্যদিকে, গেস্ট হাউসের একটি কক্ষের ভাড়া মাত্র ১ হাজার ৪৮০ টাকা। এ বিষয়ে জানতে এমডি আবদুল হাকিমকে একাধিকবার কল করা হয়। কিন্তু তিনি রিসিভ করেননি। তাঁর হোয়াটসঅ্যাপেও বার্তা পাঠানো হয়, তাতেও তিনি জবাব দেননি। অন্যদিকে, তাঁর অনুমতি ছাড়া কারখানার ভেতরে কাউকে প্রবেশও করতে দেওয়া হয় না। এ কারণে তাঁর বক্তব্য জানা সম্ভব হয়নি।

বিসিআইসির কর্মকর্তা জাকির হোসেন বলেন, বিসিআইসির নিয়মানুযায়ী, সপরিবারে কারখানার গেস্ট হাউসে থাকার সুযোগ নেই। এমডিকে তাঁর নির্ধারিত বাসভবনেই থাকতে হবে। এ ক্ষেত্রে কেউ প্রতারণা করলে বা অনিয়মের আশ্রয় নিলে অবসর সময়ে হলেও তাঁর এই ভাড়ার টাকা আদায় করা হবে।

আরও পড়ুন

×