'জিয়া কখনোই মুক্তিযুদ্ধের চেতনার সঙ্গে থাকেননি'

প্রকাশ: ২৪ জানুয়ারি ২০২০   

সিলেট ব্যুরো

শুক্রবার বিকেলে সিলেটের দক্ষিণ সুরমা ও বালাগঞ্জ মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স উদ্ধোধন করেন মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক- সমকাল

শুক্রবার বিকেলে সিলেটের দক্ষিণ সুরমা ও বালাগঞ্জ মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স উদ্ধোধন করেন মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক- সমকাল

মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক বলেছেন, জিয়াউর রহমানের মুক্তিযুদ্ধ পরবর্তী ভূমিকায় তার স্বাধীনতাবিরোধী আসল রূপ উম্মোচন হয়েছে। জিয়াউর রহমান কখনোই মুক্তিযুদ্ধের চেতনার সঙ্গে থাকেননি। তিনি বঙ্গবন্ধুর আত্মস্বীকৃত খুনিদের বিভিন্ন দেশে বড় বড় পদে অধিষ্ঠিত করেছিলেন। একটা গরু চোর মারলেও তার হত্যার বিচার হয়। কিন্তু জিয়া জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুকে হত্যার বিচার বন্ধে ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ করেছিলেন। জিয়া নিষিদ্ধ জামায়াতে ইসলামীকে রাজনীতি করার সুযোগ দেন। তিনি স্বাধীনতাবিরোধী শাহ আজিজ, আবদুল আলিমসহ রাজাকারদের মন্ত্রী করেছিলেন। এতে বুঝতে হবে তিনি (জিয়া) কোনো পক্ষে ছিলেন।

শুক্রবার বিকেলে সিলেটের দক্ষিণ সুরমা উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে দক্ষিণ সুরমা ও বালাগঞ্জ মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স উদ্ধোধন শেষে  মুক্তিযোদ্ধাদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স নির্মাণ প্রকল্পের আওতায় প্রায় ২ কোটি ৫১ লাখ টাকা ব্যয়ে দক্ষিণ সুরমায় এবং প্রায় ২ কোটি ৬১ লাখ টাকা ব্যয়ে বালাগঞ্জে উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স নির্মিত হয়েছে। 

মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী বলেন, নতুন প্রজন্ম জানে না পাকিস্তানি হানাদাররা এ দেশের মানুষের ওপর কী নির্যাতন করেছিল। পাঠ্যপুস্তকে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস সম্পর্কে পুরোপুরি তথ্য নেই। তাই পাঠ্যপুস্তকে শুধু মুক্তিযোদ্ধাদের বীরত্বগাথা নয়, পাকিস্তানি হানাদার ও তাদের দোসর রাজাকারদের কথাও লেখা হবে। তাহলে পরবর্তী প্রজন্ম বুঝতে পারবে কার কেমন ভূমিকা ছিল। এ সময় মন্ত্রী মুক্তিযোদ্ধাদের কল্যাণে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন কার্যক্রম তুলে ধরেন।

সিলেট জেলা প্রশাসক এম কাজী এমদাদুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে সিলেট-৩ আসনের এমপি মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরীসহ স্থানীয় প্রশাসন, মুক্তিযোদ্ধা ও আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ বক্তব্য দেন।