মোবাইল টাওয়ারের যন্ত্রাংশ চুরিতে সাবেক কর্মীরা

প্রকাশ: ২৭ জানুয়ারি ২০২০     আপডেট: ২৭ জানুয়ারি ২০২০   

যশোর অফিস

পুলিশের হাতে আটককৃতরা- সমকাল

পুলিশের হাতে আটককৃতরা- সমকাল

বিভিন্ন মোবাইল ফোন কোম্পানির সাবেক কর্মীদের সমন্বয়ে যশোরে গড়ে উঠেছে সংঘবদ্ধ এক চোরচক্র। যশোর পুলিশ এমন একটি চক্রকে শনাক্ত করেছে, যারা মোবাইল ফোন টাওয়ারের যন্ত্রাংশ চুরিতে জড়িত।

এ চক্রের সাত সদস্যকে আটক করেছে পুলিশ। তারা হলো- যশোর সদরের বারান্দী মোল্লাপাড়া এলাকার হারুন অর রশিদ ওরফে মিঠু, ঝুমঝুমপুর এলাকার মেজবাহ উদ্দিন মিরাজ, ঝুমঝুমপুর দক্ষিণপাড়ার মোস্তাফিজুর রহমান রিমু, রাজারহাট সীতারামপুর এলাকার রাকিবুল ইসলাম রাকিব ওরফে চঞ্চল, আবদুর রহিম মোল্লা, এনায়েতপুর গ্রামের খাইরুল ইসলাম, সাতক্ষীরার কলারোয়া উপজেলার রঘুনাথপুর মোড়লপাড়ার নিজাম উদ্দিন।

তারা বিভিন্ন সময়ে বাংলালিংক, গ্রামীণফোন ও রবি কোম্পানিতে বিভিন্ন পদে চাকরি করত।

যশোরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ তৌহিদুল ইসলাম বলেন, এরা মোবাইল ফোন টাওয়ারের ব্যাটারি ইন্সটলেশনসহ বিভিন্ন কারিগরি কার্যক্রম পরিচালনা করত। চাকরি হারানো সাবেক কর্মী রাকিবুল ইসলাম রাকিব ওরফে চঞ্চল, মেজবাউদ্দিন রাজু ওরফে মিরাজের নেতৃত্বেই মোবাইল টাওয়ারের ব্যাটারি চোরচক্র গড়ে উঠেছে। পুরো চক্রের সন্ধানে মাঠে নেমেছে যশোর পুলিশ।

সোমবার দুপুরে পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে ব্রিফিংকালে তিনি আরও জানান, গত ১২ জানুয়ারি বাঘারপাড়ার বল্লামুখ এলাকার গ্রামীণফোনের টাওয়ারের ছয় লাখ টাকা মূল্যের ব্যাটারি চুরি হয়। এ ঘটনায় বাঘারপাড়া থানায় ২২ জানুয়ারি মামলা হয়। মামলার তদন্ত করতে গিয়ে একটি ভিডিও ফুটেজ পাওয়া যায়। ভিডিও ফুটেজ পর্যালোচনা করে চোর শনাক্ত করা হয়। এর পর ডিবির দুটি টিম যশোর, খুলনা ও সাতক্ষীরায় অভিযান শুরু করে। গত দু'দিনে অভিযান চালিয়ে মোবাইল ফোন কোম্পানির টাওয়ারের ব্যাটারি ও যন্ত্রাংশ চোরচক্রের সাত সদস্যকে আটক করা হয়।

তিনি আরও জানান, চুরির কাজে ব্যবহূত একটি ডাবল কেবিন পিকআপ, ১শ' পিস ১ দশমিক ৫ ভোল্টের ব্যাটারি, ৪৯টি সার্কিট, ২২টি কুলিং ফ্যান ও টাওয়ারের দরজা, ৩টি ভাঙা তালা ও তালা ভাঙার বিভিন্ন ধরনের সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয়েছে। উদ্ধারকৃত আলামতের আনুমানিক মূল্য এক লাখ ৫০ হাজার টাকা।