খাটের নিচে টাকা রাখা সেই প্রকল্প কর্মকর্তা জেলহাজতে

প্রকাশ: ১০ জানুয়ারি ২০২০      

দিনাজপুর প্রতিনিধি

গ্রেপ্তার উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা তাজুল ইসলাম, ছবিটি বৃহস্পতিবারের -সমকাল

ঘুষ ও দুর্নীতির মাধ্যমে উপার্জিত ১ কোটি ৮৫ লাখ ২৫ হাজার টাকাসহ আটক দিনাজপুরের পার্বতীপুর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা তাজুল ইসলামকে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। 

শুক্রবার বিকেল ৫টার দিকে এই আদেশ দেন দিনাজপুরের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ইসমাইল হোসেন।

এর আগে তাজুলের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে বিকেল ৪টায় তাকে আদালতে হাজির করেন দুদকের কর্মকর্তারা। 

দিনাজপুর কোর্ট পুলিশ পরিদর্শক ইসরাইল হোসেন বিষয়টি সমকালকে নিশ্চিত করে জানান, আগামী রোববার শুনানির জন্য তাকে জেলা ও দায়রা জজ আদালতে নিয়ে আসা হবে। 

দুর্নীতি দমন কমিশন দিনাজপুর জেলা সমন্বিত কার্যালয়ের উপপরিচালক আবু হেনা মো. আশিকুর রহমান জানান, আটক উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা তাজুল ইসলামের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। উদ্ধারকৃত অর্থ ট্রেজারিতে রাখা হয়েছে। 

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার বিকেল ৪টার দিকে দুদকের হটলাইন ১০৬ -এর অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে কমিশনের অনুমোদনক্রমে দুদকের একটি দল জেলার পার্বতীপুর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) তাজুল ইসলামের কার্যালয় ও সরকারি বাসভবনে অভিযান চালায়। বিকেল পৌনে ৫টা থেকে রাত অবধি অভিযানে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, সহকারী কমিশনার (ভূমি), নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও পুলিশ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। অভিযানকালে পিআইও’র কার্যালয় থেকে ২৫ হাজার ও বাসভবনের খাটের নিচ ও ময়লা-আবর্জনার পাশে রাখা ৪টি ব্যাগে ১ কোটি ৮৫ লাখ টাকা উদ্ধার করে দুদক। এই ঘটনায় উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা তাজুল ইসলামকে আটক করে দুদকের কর্মকর্তারা। এসব টাকা বিভিন্ন প্রকল্পের ‘কমিশন’ বলে স্বীকার করেছেন পিআইও তাজুল ইসলাম। 

আটকের সময় দুদকের জিজ্ঞাসাবাদে পিআইও তাজুল ইসলাম জানান, বিভিন্ন প্রকল্প থেকে কমিশন হিসেবে এসব টাকা পেয়েছেন তিনি। তবে কোন কোন ব্যক্তি কিংবা প্রকল্পের মাধ্যমে টাকা পেয়েছেন এ ব্যাপারে জানতে চাওয়া হলেও তা জানাননি। 

দুদকের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, যেসব ব্যক্তি ও প্রকল্পের মাধ্যমে এসব টাকা গ্রহণ করা হয়েছে তা চিহ্নিত করা হবে।