লেখক ও কলামিস্ট সৈয়দ আবুল মকসুদ বলেছেন, ঈশ্বরদীতে বেশ কয়েকজন কৃষক রয়েছেন, যারা বঙ্গবন্ধু জাতীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত। এসব কৃষকের প্রতি সরকারের বিশেষ গুরুত্ব দেওয়া উচিত। কেননা, তাদের নামের সঙ্গে বঙ্গবন্ধুর নাম জড়িয়ে রয়েছে। কিন্তু বাস্তব অবস্থা হলো, এসব কৃষক খুবই উপেক্ষিত এবং গুরুত্বহীন। এটা আমাদের সবার জন্য লজ্জার।

বাংলাদেশ কৃষক উন্নয়ন সোসাইটির উদ্যোগে 'ঈশ্বরদীতে জুতসই ও টেকসই উন্নয়নের লক্ষ্যে কৃষকদের সঙ্গে মতবিনিময়' শীর্ষক অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। বৃহস্পতিবার উপজেলার মুলাডুলি ইউনিয়নের আড়কান্দি গ্রামে ময়েজউদ্দিন কৃষি খামারে এ মতবিনিময় সভা হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন জাপানে অনারারি কনসাল জেনারেল মুহম্মদ নুরুল ইসলাম। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে আরও ছিলেন ঐক্য ন্যাপ সভাপতি পংকজ ভট্টাচার্য, একুশে পদকপ্রাপ্ত সাংবাদিক রণেশ মৈত্র ও গণবিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক মনসুর মুসা।

সৈয়দ আবুল মকসুদ বলেন, আমাদের দেশের অনেক মন্ত্রীরই লজ্জা নেই। লজ্জা থাকলে প্রধানমন্ত্রী যখন তাদের অপারগতা ও ব্যর্থতার জন্য বকাঝকা করেন, তখন তারা ব্যর্থতার দায় স্বীকার করে পদত্যাগ করতেন। পরিবহন সংকটের কারণে কৃষক তার উৎপাদিত পণ্যের ন্যায্য দাম পাচ্ছে না বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

বাংলাদেশ কৃষক উন্নয়ন সোসাইটির সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান ময়েজের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন- ঈশ্বরদী পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ইছাহক আলী মালিথা, ঈশ্বরদী প্রেসক্লাবের সভাপতি স্বপন কুমার কুণ্ডু, বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্বর্ণপদকপ্রাপ্ত কৃষক বেলী বেগম, আব্দুল বারী, কৃষক নেতা ও পৌর কমিশনার আবুল হাসেম, মুরাদ মালিথা, মেহেদী মাসুদ, আব্দুস সামাদ, শাহীন, পাঞ্জাব আলী, আলী সাহান, ঈশ্বরদী থানার ওসি বাহাউদ্দিন ফারুকী প্রমুখ।