নিউজপ্রিন্ট মিলের জমিতে হচ্ছে না সার কারখানা

 আশাহত খুলনাবাসী

প্রকাশ: ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০     আপডেট: ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০       প্রিন্ট সংস্করণ

হাসান হিমালয়, খুলনা

ছবি: ফাইল

ছবি: ফাইল

গত ৭ ডিসেম্বর খুলনা সফরে এসে দীর্ঘদিন বন্ধ থাকা খুলনা নিউজপ্রিন্ট মিলের জমিতে টিএসপি সার কারখানা নির্মাণের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন শিল্প প্রতিমন্ত্রী কামাল আহমেদ মজুমদার। কিন্তু বাংলাদেশ কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিজ করপোরেশনের (বিসিআইসি) প্রকৌশলীদের প্রতিবেদনে নিউজপ্রিন্টের ভৌগোলিক অবস্থা এবং ভৈরব নদ টিএসপি সার কারখানা নির্মাণের জন্য উপযোগী নয় বলে উঠে এসেছে। বিশেষ করে টিএসপি সারের কাঁচামাল পরিবহনের সুযোগ না থাকায় এই স্থানে কারখানা স্থাপনের পরিকল্পনা থেকে সরে এসেছে বিসিআইসি।

এদিকে বিসিআইসির এই সিদ্ধান্তে ফের আশাহত হয়েছেন খুলনার মানুষ। ২০০২ সালে মিল বন্ধের পর থেকে নিউজপ্রিন্ট মিলের স্থানে বিকল্প শিল্প কলকারখানা চালুর বিষয়ে নানা প্রতিশ্রুতি শুনে আসছেন শিল্পাঞ্চলের মানুষ। কোনো প্রতিশ্রুতিই এ পর্যন্ত বাস্তবায়ন হয়নি। এ ব্যাপারে বৃহত্তর খুলনা উন্নয়ন সংগ্রাম সমন্বয় কমিটির মহাসচিব শেখ আশরাফ উজ জামান বলেন, সর্বশেষ ২০১৪ সালে নিউজপ্রিন্ট মিলের ৫০ একর জমি বিক্রি করে সেখানে বিদ্যুৎকেন্দ্র এবং ওই অর্থে নতুন আরেকটি কাগজকল নির্মাণের প্রস্তাব দেওয়া হয়। সেই প্রস্তাব অনুযায়ী জমি বিক্রি হলেও কাগজকলের বিষয়টি এখনও ঝুলে আছে। এ অবস্থায় শিল্প প্রতিমন্ত্রীর প্রতিশ্রুতিতে আমরা কিছুটা আশার আলো দেখেছিলাম। এখন আবার সবাই হতাশ হয়ে পড়েছি।

বাংলাদেশ কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিজ করপোরেশন (বিসিআইসি) থেকে জানা গেছে, গত ৭ ডিসেম্বর শিল্প প্রতিমন্ত্রী কামাল আহমেদ মজুমদার, বিসিআইসি চেয়ারম্যান মো. হাইয়ুল কাইয়ুম, পরিচালক (বাণিজ্যিক) আমিন উল আহসানসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা খুলনা সফরে আসেন। ওই দিনই নিউজপ্রিন্ট মিলের জমিতে একটি টিএসপি সার কারখানা নির্মাণের প্রতিশ্রুতি দেন প্রতিমন্ত্রী। পরে ঢাকায় গিয়ে বিসিআইসির পরিকল্পনা বিভাগকে এ নিয়ে জরিপ চালানোর নির্দেশ দেন। ওই মাসেই পরিকল্পনা বিভাগের প্রকৌশলীরা খুলনা সফর করেন।

পরে তারা জানান, টিএসপি সার কারখানার জন্য কাঁচামাল হিসেবে রক ফসফেট আমদানি করতে হয়। সাধারণত ২৫ হাজার টনের জাহাজে এ ফসফেট দেশে আসে। ভৈরব নদে ২৫ হাজার টনের জাহাজ প্রবেশ সম্ভব নয়। এই কাঁচামাল কার্গোতে করে কারখানায় আনা এবং এক জাহাজ থেকে দ্বিতীয় জাহাজে স্থানান্তর করাও সম্ভব নয়। এ অবস্থায় ভৈরব নদের নিউজপ্রিন্ট মিলের জমিতে কাঁচামাল আনা না গেলে টিএসপি সার কারখানা নির্মাণ করা কোনোভাবেই সম্ভব নয়।

বিসিআইসির পরিচালক (বাণিজ্যিক) আমিন উল আহসান সমকালকে বলেন, পরিকল্পনা বিভাগের প্রকৌশলীদের মতামতের ওপর আমরা বুঝতে পেরেছি নিউজপ্রিন্ট মিলের জমিতে টিএসপি সার কারখানা নির্মাণ করা সম্ভব নয়। যেখানে কাঁচামাল পৌঁছানো যাবে না, সেখানে কারখানা কীভাবে সম্ভব? এজন্য টিএসপি সার কারখানার প্রস্তাব বাতিল করা হয়েছে। ওই স্থানে অন্য কী করা যায়, তা ভেবে দেখা হচ্ছে।

তিনি জানান, বিসিআইসির কর্ণফুলী পেপার মিল এখন লোকসানি প্রতিষ্ঠান। বর্তমান বাজারে প্রতিযোগিতায় তারা টিকতে পারছে না। এ অবস্থায় নতুন আরেকটি কাগজকল কতটুকু যুক্তিযুক্ত হবে, সেটাও ভেবে দেখা হচ্ছে। তবে নিউজপ্রিন্ট মিলের জমিতে যে কোনো একটি উৎপাদনশীল কারখানা নির্মাণে সবাই আন্তরিক।

১৯৫৭ সালে ভৈরব নদের তীরে খুলনা নিউজপ্রিন্ট মিলের যাত্রা শুরু হয়। লোকসানের অজুহাতে ২০০২ সালে মিলটি বন্ধ করে দেয় তৎকালীন জোট সরকার।