ছাত্রলীগ নেতার বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা করলেন তরুণীর মা

প্রকাশ: ১২ ফেব্রুয়ারি ২০২০     আপডেট: ১২ ফেব্রুয়ারি ২০২০   

 বরিশাল ব্যুরো

কলেজছাত্রী অপহরণের পর ধর্ষণের অভিযোগে বরিশাল জেলা ছাত্রলীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক বণি আমিনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। ওই তরুণীকে নগরী থেকে অপহরণ করে কুয়াকাটায় একটি আবাসিক হোটেলে দুই দিন আটকে রেখে ধর্ষণ করা হয়েছে বলে মামলায় অভিযোগ করা হয়েছে। ছাত্রীর মা রোববার নগর পুলিশের বিমান বন্দর থানায় মামলা দায়ের করেছেন। মঙ্গলবার এ ঘটনা জানাজানি হয়। অভিযুক্ত ছাত্রলীগ নেতা বনি আমিন পলাতক রয়েছে। তাকে ছাত্রলীগ থেকে বহিষ্কারের জন্য কেন্দ্রে সুপারিশ পাঠানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রাজ্জাক।

বনি আমিন নগরীর কাশিপুর গণপাড়া এলাকার বাসিন্দা জাহাঙ্গীর হোসেনের ছেলে।  ছাত্রলীগের রাজনীতির পাশাপাশি তিনি বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মচারী (ইস্যু ক্লার্ক) এবং বিশ্ববিদ্যালয় কর্মচারী সমিতির সভাপতি। নগরীর সরকারি মহিলা কলেজের একাদশ শ্রেণীর ছাত্রী এ ঘটনার শিকার। ওই ছাত্রীকে জোর করে মাইক্রোবাসে তুলে কুয়াকাটায় নিয়ে যাওয়ার পর সেখানকার একটি আবাসিক হোটেলে দুই দিন আটকে রেখে ধর্ষণ করে। এ ঘটনা জানাজানি হলে সোমবার ছাত্রীকে ঝালকাঠীতে এক আত্মীয়ের বাড়িতে রেখে বনি আমিন পালিয়ে যায়।

বিমান বন্দর থানার ওসি জাহিদ বিন আলম মামলার এজাহারের বরাত দিয়ে জানান, গত রোববার বনি আমিন নগরীর নথুল্লাবাদ কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল এলাকায় অবস্থান নেন। কলেজছাত্রী ওই পথে যাওয়া-আসা করে। কিছুক্ষণ পরে কলেজছাত্রী সেখানে পৌঁছালে বনি আমিন তাকে একটি মাইক্রোতে ওঠার প্রস্তাব দেন। ছাত্রী রাজী না হলে জোর করে তোলা হয় এবং মাইক্রোটি দ্রুত চালিয়ে নথুল্লাবাদ এলাকা ত্যাগ করে।

ওসি জাহিদ বিন আলম জানান, রোববার রাতে অভিযোগ পেয়ে ছাত্রীকে উদ্ধারে বিভিন্ন জায়গায় অভিযান চালানো হয়। সোমবার রাতে ঝালকাঠি শহরে ওই ছাত্রীর এক আত্মীয়র বাড়ি থেকে তাকে উদ্ধার করা হয়েছে। অভিযুক্ত বনি আমিনকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। ওই ছাত্রীকে শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ (শেবাচিম) হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।