কুমিল্লায় মানব পাচারকারী চক্রের তিন সদস্যসহ তিন রোহিঙ্গাকে আটক করেছে র‌্যাব। জেলার চৌদ্দগ্রাম উপজেলার ধরকড়া বাজার এবং চিওড়া এলাকায় বিশেষ অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়। 

তাদের কাছ থেকে প্রচুর ভুয়া পাসপোর্ট, পাসপোর্ট তৈরির ভুয়া জন্মসনদ, অন্যান্য কাগজপত্র এবং সার্টিফিকেট তৈরির কাজে ব্যবহৃত তিনটি কম্পিউটার, দুটি প্রিন্টার, একটি স্ক্যানার, সাতটি মোবাইল ফোন এবং নগদ ৬০ হাজার ৫৪০ টাকা উদ্ধার করা হয়। পাচারকারী চক্র ভুয়া কাগজপত্রে পাসপোর্ট তৈরি করে রোহিঙ্গাদের বিদেশে পাচার করার চেষ্টা করছিল।

সোমবার কুমিল্লার র‌্যাব ১১-এর সিপিসি-২-এর কার্যালয়ে প্রেস ব্রিফিংয়ে র‌্যাবের কোম্পানি অধিনায়ক মেজর তালুকদার নাজমুছ সাকিব এ তথ্য জানান। পাচারকারী তিন সদস্য হলো- উপজেলার কাপড় চতলী এলাকার আব্দুর রহিম রুবেল (২৫), নূরুল হক (২৯) এবং ডিমাতলী এলাকার ফয়সাল আহাম্মেদ রনি (৩২)। উদ্ধার রোহিঙ্গাদের মধ্যে একজন কিশোরী। তার নাম জানা যায়নি। অপর দু'জন হলেন- জাহেদ হোসেন (২৫), মো. রফিক (৩৭)। তারা কক্সবাজারে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে বাস করেন। 

মেজর নাজমুছ সাকিব বলেন, পাচারকারীরা দীর্ঘদিন ধরে কক্সবাজারের বিভিন্ন ক্যাম্প থেকে নানা প্রলোভন দেখিয়ে রোহিঙ্গাদের বিদেশে পাচারের উদ্দেশ্যে কুমিল্লাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে নিয়ে আসে। এরপর তারা বাংলাদেশি পাসপোর্ট তৈরি করে মালয়েশিয়াসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে পাচার করে। পাচারকারীদের বিরুদ্ধে চৌদ্দগ্রাম থানায় মামলা হয়েছে।