দিনভর নানা আলোচনা ও সমালোচনার মুখে অবশেষে গাজীপুর মহানগরের কোণাবাড়ি এলাকায় প্রতিষ্ঠিত মাল্টিফ্যাবস লিমিটেড কর্তৃপক্ষ কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নামাজ না পড়লে বেতন কাটার জারি করা নির্দেশনা বাতিল করেছে।

সোমববার ওই কারখানার কার্যনির্বাহী পরিচালক আবদুল কুদ্দুস স্বাক্ষরিত সংশোধিত এক অফিস নোটিশে বলা হয়েছে, ‘গত ৯ ফেব্রুয়ারির জারি করা নোটিশটি শুধু মুসলিমদেরকে নামাজ আদায়ে উৎসাহিত করার জন্য দেওয়া হয়েছিল। বেতন কাটার কোনো উদ্দেশ্য ছিল না। ভুলবশত বেতন কর্তনের বিষয়টি উল্লেখ থাকায় আমরা আন্তরিকভাবে দু:খিত।’

কারখানার মানবসম্পদ বিভাগের সহকারী ব্যবস্থাপক এনামুল করিম বলেন, ‘গত ৯ তারিখের নোটিশে নামাজ পড়ার বিষয়ে বেতন কাটার যে সতর্কতা দেওয়া হয়েছিল, এটা মূলত শৃঙ্খলা ও ভ্রাতৃত্ববোধ তৈরির জন্য দেওয়া হয়। এতে কারও বেতন কাটার উদ্দেশ্য ছিল না।’

কারখানার হিসাব বিভাগের নিরীক্ষক (অডিটর) বিলাস সরকার বলেন, ‘কারখানাটিতে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্টের কোনও অভিযোগ কেউ করেননি। অসাম্প্রদায়িক চেতনা নিয়ে সবাই এখানে কাজ করছেন।’

চলতি মাসের ৯ তারিখে জারি করা এক নোটিশে কারখানার কর্মকর্তা-কর্মচারীদের জন্য জোহর, আসর ও মাগরিবের নামাজ বাধ্যতামূলক করা হয়েছিল। নামাজ পড়ার জন্য ঢোকার সময় মসজিদের পাঞ্চ মেশিনে পাঞ্চ করে উপস্থিতি নিশ্চিত করার নির্দেশনাও জারি করা হয়। কোনো কর্মকর্তা-কর্মচারী যদি মাসে সাতবার নামাজ আদায় থেকে বিরত থাকেন তাহলে তার এক দিনের বেতন কেটে রাখা হবে- এই খবরটি ছড়িয়ে পড়লে সমালোচনার মুখে পড়ে কর্তৃপক্ষ। অবশেষে পূর্বে ঘোষিত সেই নোটিশ বাতিল করা হয়েছে।

জানা গেছে, ওই কারখানায় ইসলাম ধর্ম ছাড়াও বিভিন্ন ধর্মের সাড়ে ৫ হাজার কর্মকর্তা-কর্মচারী রয়েছেন।