ধর্ষণের শিকার সেই ৩ ছাত্রীর ছাড়পত্র প্রত্যাহার করল স্কুল

প্রকাশ: ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০     আপডেট: ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০   

ঘাটাইল (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি

ঘাটাইলে বেড়াতে গিয়ে ধর্ষণের শিকার সেই তিন ছাত্রীকে দেওয়া ছাড়পত্র প্রত্যাহার করল স্কুল কর্তৃপক্ষ। তারা তাদের নিজ স্কুলেই লেখাপড়া চালিয়ে যেতে পারবে বলে জানিয়েছেন ঘাটাইলের ইউএনও অঞ্জন কুমার সরকার এবং ওই তিন ছাত্রীর স্কুলের প্রধান শিক্ষক। 

'এবার বিদ্যালয় থেকেও বিতাড়নের উদ্যোগ' শিরোনামে বুধবার সমকালের শেষের পাতায় একটি সংবাদ প্রকাশিত হয়। সংবাদটি ইউএনও'র নজরে এলে তিনি বিষয়টি সমাধানের উদ্যোগ নেন।

ইউএনও অঞ্জন কুমার সরকার বলেন, সমকালে প্রকাশিত সংবাদটি পড়ে আমি তাৎক্ষণিকভাবে মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা, স্কুলের সভাপতি এবং প্রধান শিক্ষকের সঙ্গে কথা বলে ভুক্তভোগী তিন ছাত্রীর দেওয়া ছাড়পত্র বাতিল করেছি। তারা এখন নিজ স্কুলেই অধ্যয়ন করতে পারবে। ওই তিন ছাত্রীর মধ্যে দু'জনের সঙ্গে আমার কথা হয়েছে এবং একজনকে পাইনি। যে ছাত্রীকে পাওয়া যায়নি তাকেও বুঝিয়ে স্কুলে নিয়ে আসতে মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তাকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। 

মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা একেএম শাসমুল বলেন, ওই তিন ছাত্রী ও তাদের অভিভাবকের সঙ্গে কথা বলে তাদের স্কুলে নিয়ে গিয়েছি। আগামী শনিবার থেকে তারা নিয়মিত ক্লাস করবে। ছাড়পত্র বাতিলের সত্যতা স্বীকার করে ওই স্কুলের প্রধান শিক্ষক বলেন, ওই তিন ছাত্রী চাইলে এখন থেকে নিয়মিত ক্লাস করতে পারবে।

গত ২৬ জানুয়ারি নবম শ্রেণির ওই ছাত্রীদের স্কুলে অনুষ্ঠান ছিল। ওইদিন তারা চার বান্ধবী এবং তাদের মধ্যকার দুইজনের দুই ছেলে বন্ধু মিলে অটোরিকশা নিয়ে ঝড়কা সেনাবাহিনীর ফায়ারিং রেঞ্জে যায়। পরে সেখান থেকে তারা উপজেলা সন্ধানপুর ইউনিয়নের সাতকুয়া নামক স্থানে যায়। সেখানে ৫-৬ দুর্বৃত্ত তিন ছাত্রীকে ধর্ষণ ও আরেক ছাত্রীকে লাঞ্ছিত করে পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় ঘাটাইল থানায় শিশু অপহরণ ও ধর্ষণের মামলা হয়। 

পরে ধর্ষণের শিকার তিন ছাত্রী স্কুলে নিয়মিত ক্লাস করার জন্য লিখিত আবেদন করে। তবে স্কুল কর্তৃপক্ষ তাদের ছাড়পত্র ধরিয়ে দেয়। ওই তিন ছাত্রীর একজনের অভিভাবক সমকালকে ধন্যবাদ দিয়ে বলেন, আমার মেয়ে আবার স্কুলে যেতে পারবে, লেখাপড়া করতে পারবে- এটা আনন্দের।