চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন (চসিক) নির্বাচনের প্রতিটি ভোটকেন্দ্রে সেনাবাহিনীর উপস্থিতি থাকলেও তারা কেবল প্রযুক্তিগত বিষয়গুলো দেখবেন বলে জানিয়েছেন নির্বাচন কমিশনার (ইসি) রফিকুল ইসলাম।

শুক্রবার সকাল সাড়ে ১০টায় চট্টগ্রাম আঞ্চলিক নির্বাচন কমিশন কার্যালয়ে মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই সংক্রান্ত দিকনির্দেশনামূলক সভা শেষে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা জানান। তিনি বলেন, 'নির্বাচনে সব ধরনের পরিবেশ নিশ্চিত করার চেষ্টা করছে কমিশন। কোনো ধরনের ঝামেলা হবে না- এটুকু আশ্বস্ত আমরা করতে পারি। কেন্দ্রে সেনাবাহিনীর উপস্থিতি থাকবে, তবে তারা টেকনিক্যাল বিষয়গুলো দেখবেন।'

ইসি রফিকুল আরও বলেন, 'সিটি করপোরেশন নির্বাচন কিংবা স্থানীয় সরকার নির্বাচনে কখনও আমরা সেনা মোতায়েন করিনি। এবারও করব না। কিন্তু কেন্দ্র্রে সেনাবাহিনীর উপস্থিতি থাকবে এবং সেটা পোশাকে। তবে অস্ত্র থাকবে না। তারা শুধু ইভিএমের প্রযুক্তিগত বিষয়গুলো দেখবেন।'

বিএনপিসহ বিভিন্ন পক্ষ থেকে নির্বাচন পেছানোর দাবি উঠলেও ইসি রফিকুল ইসলাম অবশ্য জানিয়েছেন নির্বাচন পেছানোর সুযোগ নেই। তিনি বলেন, 'নির্বাচন পেছানোর কোনো সুযোগ নেই। কারণ ১ এপ্রিল থেকে এইচএসসি পরীক্ষা শুরু হচ্ছে। মাসব্যাপী এ পরীক্ষা চলবে। এরপর রোজা এবং ঈদুল ফিতর রয়েছে। তা ছাড়া বর্ষাকালে চট্টগ্রাম শহরে নির্বাচন তো কল্পনাই করা যায় না।'

এ সময় উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা মোহাম্মদ হাসানুজ্জামান, জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মনির হোসেন খান, অতিরিক্ত আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা মোহাম্মদ আতাউর রহমান, বশির আহমদ, রাঙামাটি সিনিয়র জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা শফিকুর রহমান, কক্সবাজার জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা এস এম শাহাদাত হোসাইন, খাগড়াছড়ি জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা রাজু আহমেদ, কুমিল্লা জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর হোসেন।