বাংলাদেশে জঙ্গি তৎপরতার উল্লেখ করার মতো তেমন কোনো কার্যক্রম নেই বলে দাবি করেছেন পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী।

আইজিপি বলেন, ‘জঙ্গিদের কিছু দাওয়াতী কার্যক্রম রয়েছে। সেগুলো আমাদের নেটওয়ার্কে যখন চলে আসছে, সঙ্গে সঙ্গে আমরা ধরে ফেলছি এবং তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিচ্ছি। এটা অব্যাহত থাকবে।’ 

সোমবার দুপুরে খুলনা পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন আইজিপি। খুলনার পুলিশ সুপারের কার্যালয়সহ বিভিন্ন স্থাপনার উদ্বোধন করতে তিনি সেখানে যান।

জঙ্গি নির্মূলে পুলিশের সক্ষমতা অনেকগুণ বৃদ্ধি পেয়েছে দাবি করে তিনি বলেন, গত দুই বছরে পুলিশের মধ্যে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করার চেষ্টা চলছে। গত দুই বছর প্রায় ১০ হাজার কনস্টেবল ও সাড়ে ৩ হাজার উপ-পরিদর্শক নিয়োগ করা হয়েছে। কারও কাছ থেকে একটি পয়সাও নেওয়া হয়নি। শুধু নিয়োগই নয়, পুলিশের পদোন্নতি ও বদলিসহ প্রতিটি জায়গায় স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিয়ে আসার চেষ্টা করছি।

আরেক প্রশ্নের উত্তরে আইজিপি বলেন, মুজিববর্ষ উদযাপন উপলক্ষে সব ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানসহ সারা বছর যেসব অনুষ্ঠান হবে সেই অনুষ্ঠানের নিরাপত্তার জন্য পৃথক পৃথক পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। 

সুষ্ঠুভাবেই সব অনুষ্ঠান সম্পন্ন হবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।

এর আগে পুলিশ সুপারের কার্যালয়ের উদ্বোধন করেন আইজিপি। অনুষ্ঠানে খুলনা সিটি মেয়র তালুকদার আবদুল খালেক, খুলনা-২ আসনের সংসদ সদস্য শেখ সালাহ উদ্দিন জুয়েল, খুলনা জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শেখ হারুনুর রশীদ, খুলনা রেঞ্জ ডিআইজি ড. খ. মহিদ উদ্দিন, খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার খন্দকার লুৎফুল কবির, খুলনার পুলিশ সুপার এস এম শফিউল্লাহ উপস্থিত ছিলেন।