গাইবান্ধার সাদুল্যাপুর উপজেলায় ইটভাটার বিদ্যুতের তারে জড়িয়ে মা-ছেলের মৃত্যু হয়েছে। শুক্রবার নূরপুর গ্রামে এ দুর্ঘটনা ঘটে। পুলিশ নিহত উৎপল কুমার চন্দ্র (১৭) ও মা সাধনা রানীর (৫৫) লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠিয়েছে। এ ঘটনায় 'অবহেলার অভিযোগে ইটভাটা মালিকের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। পুলিশ এখন পর্যন্ত তাকে আটক করতে পারেনি।

পুলিশ সূত্র জানায়, নূরপুর গ্রামের বাদল চন্দ্রের ছেলে কলেজ শিক্ষার্থী উৎপল কুমার চন্দ্র পরিবারের অভাবের কারণে লেখাপড়ার পাশাপাশি কৃষিকাজ করত। গত শুক্রবার বিকেলে সে প্রতিবেশী মনি মিয়ার ধানক্ষেতে কীটনাশক স্প্রে করতে যায়। এ সময় পার্শ্ববর্তী এসএসবি ইটভাটার বিদ্যুতের তারে জড়িয়ে তার মৃত্যু হয়। এদিকে ছেলে বাড়িতে না ফেরায় সন্ধ্যার পর তাকে খুঁজতে বের হন মা সাধনা রানী। ধারণা করা হচ্ছে, সাধনা রানী ছেলেকে ধরলে তিনিও বিদ্যুতায়িত হয়ে মারা যান।

স্থানীয়রা জানান, এসএসবি ইটভাটায় পাশের একটি প্রতিষ্ঠান থেকে বিদ্যুৎ সংযোগ নেওয়া হয়েছিল। সেই বিদ্যুতের তারে জড়িয়েই মা-ছেলের মৃত্যু হয়েছে।

সাদুল্যাপুর থানার ওসি মাসুদ রানা জানান, রাতেই মা-ছেলের লাশ উদ্ধার করা হয়। শনিবার সকালে তাদের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য গাইবান্ধা জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় নিহত উৎপল কুমারের বড় ভাই সবুজ কুমার চন্দ্র ইটভাটার মালিক শহিদুল ইসলাম বাবলার নামে মামলা করেছেন।