ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে নতুন আরো চার নারীর শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে উপজেলায় করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়ে ৫ জনে দাঁড়ালো।

গত ১১ এপ্রিল উপজেলা আঠারবাড়ি ইউনিয়নের একটি গ্রামের তরুণী (২২) এর শরীরে করোনা ভাইরাসের জীবাণু রয়েছে সন্দেহে পরীক্ষা করানো হয়। নারায়ণগঞ্জের একটি পোশাক কারখানায় শ্রমিক হিসেবে কাজ করা তরুণীর নমুনা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক দল সংগ্রহ করে পাঠালে ১২ এপ্রিল করোনা পজেটিভ আসে।

পোশাক শ্রমিক ওই তরুণী গত ৬ মাস ধরে নারায়ণগঞ্জের একটি পোশাক কারখানায় শ্রমিকের কাজ করতেন। গত ৭ এপ্রিল কর্মস্থল থেকে নিজের বোনের সাথে গ্রামের বাড়িতে আসেন। জ্বর, গলা ব্যথা ও কাশিতে আক্রান্ত হলে উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগের চিকিৎসকদল তার নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য পাঠালে করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয়। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে ইউনিয়নটিকে লকডাউন ঘোষণা করেছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. জাকির হোসেন।

ওই দিন পোশাক শ্রমিক তরুণীর পরিবার ও প্রতিবেশীর মধ্যে ৮ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়। নমুনা পরীক্ষার পর উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগের পক্ষ থেকে ৮ জনের নমুনার ফলাফল 'নেগেটিভ' বলে জানানো হয়। কিন্তু স্বাস্থ্য বিভাগের পক্ষ থেকে ওই ৮ টি নমুনা আবার যাচাই করার অনুরোধ করা হয়। এর প্রেক্ষিতে বৃহস্পতিবার ফের ৮ টি নমুনা পুনরায় যাচাই করা হয়। যাচাইয়ে আরো ৪ জনের শরীরে করোনা ভাইরাস পজেটিভ পাওয়া গেছে।

তারা হলেন- পোশাক শ্রমিক তরুণীর মা, ১৮ বছর বয়সী ও ১০ বছর বয়সী দুই বোন ও ৩৫ বছর বয়সী প্রতিবেশী নারী। 

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. জাকির হোসেন বলেন, নারায়ণগঞ্জ ফেরত পোশাক শ্রমিক নারীর শরীরে প্রথম করোনা শনাক্ত হয়। ওই অবস্থায় তার পরিবার ও প্রতিবেশী ৮ জনের নমুনা পরীক্ষার জন্য পাঠানো হলে তরুণী মা-বোনসহ ৪ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, ইতোপূর্বে আঠারবাড়ি ইউনয়নকে প্রশাসনিকভাবে লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। নতুন আক্রান্তরা চিকিৎসকদের পর্যবেক্ষণে নিজ বাড়িতেই হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকবে।