করোনা দুর্যোগে ত্রাণ কার্যক্রমে অনিয়ম ও দুর্নীতি না করতে পাবনা সদর উপজেলার সব ইউপি চেয়ারম্যান ও জনপ্রতিনিধিদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন সদর আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম ফারুক প্রিন্স। এ ইস্যুতে সরকারের কঠোর অবস্থানের কথা জানিয়ে তাদের সতর্ক করেন এবং ত্রাণকাজে দুর্নীতি না করার শপথ করান।
গতকাল বৃহস্পতিবার পাবনা সদর উপজেলা পরিষদ চত্বরে করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলায় করণীয় নির্ধারণে এক জরুরি মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভা শেষে সংসদ সদস্য গোলাম ফারুক প্রিন্সের আহ্বানে সামাজিক ও শারীরিক দূরত্ব মেনে এই ব্যতিক্রমী শপথে অংশ নেন জনপ্রতিনিধিরা। এ সময় উপজেলা চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেনসহ সদর উপজেলার সব ইউপি চেয়ারম্যান সৃষ্টিকর্তার নামে শপথ করে ত্রাণ কার্যক্রম সততার সঙ্গে পরিচালনার অঙ্গীকার করেন।
মতবিনিময় সভায় গোলাম ফারুক প্রিন্স বলেন, এই দুঃসময়ে সরকারি ত্রাণ যারা আত্মসাৎ করবেন, তাদের বিরুদ্ধে সরকার জিরো টলারেন্স ঘোষণা করেছে। কোনো জনপ্রতিনিধির বিরুদ্ধে সামান্য দুর্নীতি কিংবা স্বজনপ্রীতির প্রমাণ পেলে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। গোলাম ফারুক প্রিন্স বলেন, প্রধানমন্ত্রী অসহায় কর্মহীন মানুষের জন্য খাদ্য উপহার পাঠিয়েছেন। এ খাবার কেউ আত্মসাৎ করলে তাকে কঠিন পরিণতি ভোগ করতে হবে। আজীবনের জন্য তাদের দল থেকে বহিস্কার করা হবে। পাবনা সদর উপজেলার কোনো জনপ্রতিনিধির নামে এখন পর্যন্ত কোনো অভিযোগ পাওয়া যায়নি। আশা করি, আজকের শপথের কথা মনে রেখে তারা সর্বোচ্চ স্বচ্ছতার সঙ্গে ত্রাণ কার্যক্রম চালাবেন।
শপথে অংশ নেওয়া ভাঁড়ারা ইউপি চেয়ারম্যান আবু সাইদ খান সমকালকে বলেন, আমরা পাবনা সদর উপজেলার জনপ্রতিনিধিরা ত্রাণ বিতরণে সততা ও স্বচ্ছতার দৃষ্টান্ত গড়তে চাই।
এ সময় অন্যদের মধ্যে মোশারফ হোসেন ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জয়নাল আবেদীনসহ বেশ কয়েকজন ইউপি চেয়ারম্যান বক্তব্য দেন।