চাল চুরির মামলায় গোদাগাড়ীর সেই আ.লীগ নেতা কারাগারে

প্রকাশ: ১৯ এপ্রিল ২০২০   

গোদাগাড়ী (রাজশাহী) প্রতিনিধি

প্রতীকী ছবি

প্রতীকী ছবি

রাজশাহীর গোদাগাড়ীতে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির চাল চুরির মামলায় আটক আওয়ামী লীগ নেতা আলাল উদ্দিন ওরফে স্বপনকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। রোববার দুপুরে তাকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়। এর আগে শনিবার সন্ধ্যায় তার বাড়ি থেকে ৬৭ বস্তা সরকারি চাল উদ্ধার করা হয়।

আলাল উদ্দিন গোদাগাড়ী উপজেলার পাকড়ী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির চালের পরিবেশক। বাড়ি থেকে চাল উদ্ধারের পর উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক জামাল উদ্দিন তার নামে বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলা করেন। চাল উদ্ধার করার পর শনিবার রাতেই পুলিশ তাকে আটক করে গোদাগাড়ী থানায় নিয়ে যায়।

এ বিষয়ে গোদাগাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খাইরুল ইসলাম জানান, শনিবার রাতেই তার নামে মামলা করা হয়। রোববার দুপুর একটার দিকে তাকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

গোদাগাড়ী উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, শনিবার বিকেলে গোপন সূত্রে খবর পেয়ে আওয়ামী লীগের নেতা আলাল উদ্দিনের বাড়িতে অভিযানে যায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) নাজমুল ইসলাম সরকার ও গোদাগাড়ী থানার ওসি খাইরুল ইসলামের নেতৃত্বে একদল পুলিশ। তারা অভিযান চালিয়ে আলাল উদ্দিন ও তার ভাইয়ের বাড়ি থেকে ৫০ কেজি ওজনের ৬৭ বস্তা সরকারি চাল উদ্ধার করেন।

এ বিষয়ে গোদাগাড়ীর পাকড়ি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য আবদুর রাকিব সরকার বলেন, তিনি ওএমএসেরর চাল বিতরণ কমিটির সভাপতি। কিন্তু একবারও তাকে ডাকা হয়নি। আলাল উদ্দিন স্বপন নিজের মতো করে চাল বিক্রি দেখিয়ে আত্মসাত করেছিলেন।

তিনি আরও বলেন, সকালেও আমি ওই গ্রামে গিয়েছিলাম। চালের জন্য গরীব মানুষের মধ্যে হাহাকার চলছে। আমি নিজে ওই গ্রামের পাঁচজনকে ডেকে এনে বাজার থেকে চাল কিনে দিলাম। সরকারি দলের ক্ষমতা দেখিয়ে স্বপন নানা অপকর্মই করে বেড়াতেন। তিনি উপজেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। ২০১০ সালের দিকে আওয়ামী লীগে যোগ দেন।