ঢাকার ধামরাই উপজেলায় ছেলের পর এবার মা (৫৫) করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। সোমবার সকাল ১০টায় ধামরাই উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. নূর রিফফাত আরা এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। 

করোনায় আক্রান্ত ওই ছেলে ঢাকা ডিসি অফিসের অফিস সহকারী এবং ধামরাই সদর ইউনিয়নের হাজীপুর গ্রামের বাসিন্দা। আক্রান্ত হওয়ার পরই হাজীপুর এলাকা লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে।

ধামরাই সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শাহাব উদ্দিন জানান, ওই যুবক গত ১২ এপ্রিল তার কর্মস্থল ঢাকা ডিসি অফিস থেকে জ্বর নিয়ে ধামরাইয়ের বাসায় ফেরেন। এরপর তিনি ১৩ এপ্রিল ধামরাই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গিয়ে করোনা পরীক্ষার জন্য নমুনা দেন। পরেরদিন ধামরাই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্যকর্মীও জ্বরের কারণে নমুনা আইইডিসিআরে পরীক্ষার জন্য পাঠান। পরে ১৬ এপ্রিল প্রথমবারের মতো ধামরাইয়ে তাদের দু’জনেরই করোনা পজেটিভ রিপোর্ট আসে। এরপর স্বাস্থ্যকর্মীকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আইসোলেশনে ভর্তি করা হয়। আর ডিসি অফিসের সহকারীকে তার বাড়িতে থেকেই চিকিৎসা নেওয়ার পরামর্শ দেন চিকিৎসকরা। এরপর ১৭ এপ্রিল তার মায়ের নমুনাও পরীক্ষার জন্য আইইডিসিআরে পাঠানো হয়।  

তিনি আরো জানান, ছেলে করোনায় আক্রান্ত হওয়ার পর তার মায়ের রিপোর্টও রোববার রাতে পজেটিভ এসেছে। তাদের দু’জনকেই বাড়িতে আলাদা থেকে চিকিৎসা নেওয়ার জন্য পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। তবে করোনা আক্রান্ত তিনজনই সুস্থ আছেন।

তিনি আরো জানান, ধামরাই উপজেলায় এ পর্যন্ত ১০৫ জনের নমুনা সংগ্রহ করে আইইডিসিআরে পাঠানো হয়েছে। এরমধ্যে ৯৫ জনের রিপোর্ট হাতে পেয়েছি। এতে তিনজনের রিপোর্ট পজেটিভ এসেছে।  

ধামরাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সামিউল হক বলেন, করোনা আক্তান্ত হওয়ার পরই ধামরাইয়ের হাজীপুর এলাকা লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে।