বরিশালের মেহেন্দীগঞ্জ উপজেলায় গরু ক্ষেতের পাটগাছ খাওয়াকে কেন্দ্র করে দুইপক্ষের সংঘর্ষে আহত মাদরাসা ছাত্র সৌরভ খার (১৫) মৃত্যু হয়েছে। রোববার ভোরে উপজেলার বিদ্যানন্দপুর ইউনয়নের পশ্চিম রত্মপুর গ্রামে তার মৃত্যু হয়। 

এর আগে শুক্রবার গ্রামে দুইপক্ষের সংঘর্ষের সময় ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে ও পিটিয়ে সৌরভ খাকে আহত করা হয়েছিল। করোনা সংকটের কারণে তাকে বরিশাল শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিতে না পারায় বাড়িতে রেখে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছিল। 

নিহত সৌরভের বাবা মনির খাঁ জানান, একই গ্রামের আফজাল সিকদার, কালু সিকদার, জামাল সিকদার, মজিবর হাওলাদার ও ইউপি সদস্য রুমি সিকদারের সঙ্গে জমিজমা নিয়ে বিরোধ চলছিল। শুক্রবার গরু ক্ষেতের পাট খাওয়াকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষ ছেলেকে কুপিয়ে ও পিটিয়ে আহত করে। একই ঘটনায় মফছের সিকদার (৫৫), আফছার সিকদার (৬০), সুজন সিকদার (২২), সরিমা বেগম (৩৫) ও সজিব সিকদার জলিল সিকদার আহত হন। তাদের মুলাদী উপজেলা হাসপাতালে ভর্তি করা হলে সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে গুরুতর আহত সৌরভকে বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেন চিকিৎসকরা। তবে করোনা পরিস্থিতিতে সৌরভকে বাড়িতে ফিরিয়ে আনা হয়। এ অবস্থায় রোববার ভোরে তার মৃত্যু হয়।

সৌরভের মামা আরিফ সিকদার অভিযোগ করেন, ইউপি সদস্য রুমি সিকদার এ হামলায় নেৃতত্ব দিয়েছেন। সংঘর্ষের পরদিনও তিনি লোকজন নিয়ে এলাকায় মহড়া দিয়েছেন। 

বিদ্যানন্দপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জলিল মিয়া বলেন, শুক্রবার ক্ষেতের পাট খাওয়া নিয়ে প্রথমে ঝগড়া ও পরে দুপক্ষের মধ্যে মারামারি হয়। কালু সিকদার, আফজাল সিকদারসহ কয়েকজন সৌরভসহ কয়েকজনকে কুপিয়ে ও পিটিয়ে গুরুতর আহত করে।

 কাজিরহাট থানার ওসি (তদন্ত) আ. খালেক বলেন, প্রতিপক্ষের হামলায় মাদরাসাছাত্র সৌরভের মৃত্যু হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে জানা গেছে। ওই ঘটনায় শনিবার নিহতের মামা জলিল সিকদার বাদী হয়ে ১১ জনকে আসামী করে মারামারির মামলা দায়ের করেছেন। মামলাটি হত্যা মামলা হিসেবে রুজু হবে। তিনি বলেন, লাশ ময়নাতদন্তের জন্য শেবাচিম হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত কেউ আটক হয়নি।