পিরোজপুরে আম্পানের প্রভাবে দমকা বাতাস ও গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি

প্রকাশ: ২০ মে ২০২০   

পিরোজপুর প্রতিনিধি

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

প্রবল ঘূর্ণিঝড় আম্পানের প্রভাবে পিরোজপুরে মঙ্গলবার রাত থেকে থেমে থেমে দমকা বাতাস ও গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি হচ্ছে। ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত ঘোষিত এ জেলার নদ-নদীর পানি ৩ থেকে সাড়ে ৩ ফুট  বৃদ্ধি পেয়েছে। এরইমধ্যে জেলার ৭১২টি আশ্রয় কেন্দ্রে ৬০ হাজারের বেশি মানুষ আশ্রয় নিয়েছেন বলে জেলা কন্ট্রোল রুম জানিয়েছে। অন্যদের আশ্রয় কেন্দ্রে আনার জন্য কাজ করছেন প্রশাসনের কর্মকর্তা ও জনপ্রতিনিধিরা। 

ঘূর্ণিঝড় আম্পানের কারণে জেলা সদরসহ ৭টি উপজেলায় কন্ট্রোল রুম খোলা হয়েছে। জেলার আশ্রয়কেন্দ্রগুলোতে ৪ লাখ ৫ হাজার লোকের ধারণক্ষমতা রয়েছে। ইতিমধ্যে এসব কেন্দ্রে রোজাদারদের জন্য ইফতার এবং সেহরির জন্য নিরাপদ পানি ও শুকনো খাবারের ব্যবস্থা করা হয়েছে। এছাড়া সামাজিক দূরত্ব, মাস্ক বিতরণ ও মোমবাতির ব্যবস্থা করা হয়েছে।

পিরোজপুরের জেলা প্রশাসক আবু আলী মো. সাজ্জাদ হোসেন ‘আম্পান’ পরিস্থিতি নিয়ে সার্বক্ষণিক নজরদারি করছেন। তিনি বুধবার পিরোজপুর সদর উপজেলার বিভিন্ন আশ্রয়কেন্দ্র পরিদর্শন করেন এবং আশ্রিত লোকজনের মধ্যে শুকনো খাবার বিতরণ করেন। 

জেলা প্রশাসক জানান, আশ্রয়কেন্দ্রে মানুষজনকে আনার জন্য পরিবহন ব্যবস্থা, বেড়িবাঁধ রক্ষার জন্য পানি উন্নয়ন বোর্ড ও বিদ্যুৎ ব্যবস্থা সচলে সব ধরনের ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।    

এছাড়া জেলায় ৬০টি মেডিকেল টিম প্রস্তুত রয়েছে। প্রশাসনের হাতে পর্যাপ্ত শুকনো খাদ্য ও নগদ অর্থ মজুদ রয়েছে। একই সঙ্গে ঘূর্র্ণিঝড় মোকাবেলার জন্য রেডক্রিসেন্টসহ আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর বিভিন্ন দপ্তরকে প্রস্তুত রাখা হয়েছে।