বিশ্বের অন্যান্য মুসলিম দেশের সঙ্গে মিল রেখে পটুয়াখালীর বিভিন্ন উপজেলার ২৮ টি গ্রামে ঈদুল ফিতর উদযাপিত হচ্ছে।  সদর উপজেলার বদরপুর ও ছোট বিঘাই, গলাচিপা উপজেলার সেনের হাওলা, পশুরিবুনিয়া, নিজ হাওলা ও কানকুনি পাড়া, বাউফল উপজেলার মদনপুরা, শাপলাখালী, রাজনগর, বগা, ধাউরাভাঙ্গা, সুরদী, চন্দ্রপাড়া, দ্বি-পাশা, কনকদিয়া সাবুপুরা, বামনিকাঠী, বানাজোড়া ও আমিরাবাদ এবং কলাপাড়া উপজেলার দক্ষিণ দেবপুর, পাটুয়া, মরিচবুনিয়া, নাইয়া পট্টি, নিশানবাড়িয়া, শাফাখালী, তেগাছিয়া, ছোনখোলা ও বাদুরতলী গ্রামের ২৫ হাজার মানুষ রোববার ঈদ উদযাপন করছেন।

রোববার সাড়ে ৯টায় ঈদের প্রধান নামাজ অনুষ্ঠিত হয় বদরপুর দরবার শরীফের মসজিদে। এতে ইমামতি করেন মসজিদের খতিব মাওলানা মো. শফিকুল ইসলাম আবদুল গনি।
 
বদরপুর দরবার শরীফের খতিব মাওলানা মো. শফিকুল ইসলাম আবদুল গনি জানান, বিগত ৯২ বছর ধরে বিশ্বের অন্যান্য মুসলিম দেশের সঙ্গে সংগতি তারা রোজা রাখছেন এবং ঈদ উদযাপন করছেন।

প্রসঙ্গত, এসব এলাকার মুসল্লিরা পটুয়াখালীর সদর উপজেলার বদরপুর দরবার শরীফের পীর, চট্টগ্রামের সাতকানিয়ার পীর এবং পটিয়ার এলাহাবাদ পীরের অনুসারী। তারা ১৯২৮ সাল থেকে প্রতিবছর এভাবে আগাম রোজা রাখা এবং ঈদুল ফিতর ও ঈদুল আজহা উদযাপন করে আসছেন।