নওগাঁয় ৬ পুলিশ ও এক কিশোরীসহ নতুন করে আরো ১২ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এনিয়ে জেলায় মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১০৪ জনে। এসময়ে পুলিশের এক এসআইয়ের মৃত্যু হয়েছে। আবার একদিনে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ২১ জন। 

রোববার সকালে ডেপুটি সিভিল সার্জন ডা. মঞ্জুর ই মোর্শেদ বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, গত ২৪ ঘণ্টায় ২২২টি নমুনা পরীক্ষার ফলাফলে ১২ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এরমধ্যে ৬ পুলিশ ও এক কিশোরী রয়েছে। এদিকে এপর্যন্ত সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৫৫ জন। 

জেলা সিভিল সার্জন কন্ট্রোল রুম থেকে জানা গেছে, শনিবার সকাল ১০টা থেকে রোববার সকাল ১০টা পর্যন্ত ২২২টি নমুনার পরীক্ষার ফলাফল পাওয়া গেছে। এর মধ্যে জেলার সদর উপজেলার ৬ পুলিশসহ ৮ জন, পত্মীতলায় ২ জন এবং আত্রাই ও পোরশায় ১ জন করে করোনা আক্রান্ত রোগী রয়েছে। মোট আক্রান্তের মধ্যে ৫ চিকিৎসক ও ১৭ জন স্বাস্থ্যকর্মীসহ স্বাস্থ্য বিভাগের ২২ জন এবং থানার ওসি এসআইসহ পুলিশ বিভাগের ১৯ জন।

জেলা সিভিল সার্জন ডাঃ আঃ ম আখতারুজ্জামান আলাল জানান, স্বাস্থ্য বিভাগের চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মী আক্রান্তের পাশাপাশি পাল্লা দিয়ে পুলিশ সদস্যেদের মধ্যে করোনা পজিটিভের সংখ্যা ক্রমেই বৃদ্ধি পাচ্ছে। 

গত ২২ মে মোশারফ হোসেন (৫৭) নামে পুলিশের এক এসআই রাজশাহী মিশন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন। মৃত মোশারফ হোসেন রাজশাহী রেঞ্জ রিজার্ভ ফোর্স এর এসআই হলেও তিনি ডেপুটেশনে নওগাঁ জেলা পুলিশে কর্মরত ছিলেন। গত ১৭ মে নওগাঁয় তার নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য ঢাকায় পাঠানো হয়। বৃহস্পতিবার তার নমুনা পরীক্ষায় করোনা পজেটিভ এসেছে।

রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের উপ-পরিচালক ড. সাইফুল ফেরদৌস জানান, তিনি নওগাঁ থাকতে গত ১৭ মে তার নমুনা সংগ্রহ করা হয়। ওই দিন তিনি ছুটিতে রাজশাহী চলে আসেন। নমুনার ফলাফল পজেটিভ আসায় তিনি শুক্রবার সকালে রাজশাহী পুলিশ লাইন হাসপাতালে যান। সেখান থেকে তাকে আইসোলেশন ইউনিট মিশনারী খ্রিষ্টান হাসপাতালে পাঠানো হয়। বিকেল সাড়ে ৫টায় তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের অধিনে ভর্তি করে মিশন হাসপাতালে রাখা হয়। ওইদিন রাত ১১টার দিকে তিনি মারা যান। মোশারফ হোসেন রাজশাহী নগরের চন্ডিপুর এলাকায় ভাড়া বাসায় পরিবার নিয়ে বসবাস করতেন। তার বাড়ি পাবনা জেলায় বলে জানা গেছে।

তবে নওগাঁ সিভিল সার্জন অফিস ও জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে করোনা বিষয়ে দেওয়া প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে ওই পুলিশের মৃত্যুর ব্যাপারে কোন তথ্য উল্লেখ নেই।