প্রধানমন্ত্রীর অনুদানের টাকা চাওয়ায় মসজিদের ইমাম চাকুরিচ্যুত

প্রকাশ: ০৪ জুন ২০২০   

মাগুরা প্রতিনিধি

করোনাকালে সহায়তা হিসেবে প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া অনুদানের প্রাপ্য টাকা চেয়ে চাকুরিচ্যুত হয়েছেন এক মসজিদের ইমাম। এ ঘটনা ঘটেছে মাগুরার সদর উপজেলার শত্রুজিতপুর ইউনিয়নের সিংহডাঙ্গা উত্তরপাড়া মসজিদে। ভুক্তভোগী ইমামের নাম আবু সাঈদ।
 
সারাদেশের ইমাম ও মুয়াজ্জিনদের জন্য করোনা সহায়তা হিসাবে জেলায় জেলায় ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে সম্প্রতি যথাক্রমে ৩ হাজার ও ২ হাজার টাকা করে অনুদান দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। মাগুরা সদরের ৭৪৭ টি মসজিদের ইমাম ও মুয়াজ্জিনের জন্য বরাদ্দ টাকা বিতরণ করা হয় গত ৩০ মে। মাগুরা- ১ আসনের সংসদ সদস্য অ্যাড. সাইফুজ্জামান শিখর এ অর্থ বিতরণ করেন।

সদর উপজেলার সিংহডাঙ্গা উত্তরপাড়া মসজিদের ইমাম-মুয়াজ্জিনের অনুদান ওই মসজিদের সভাপতি ও  শত্রুজিতপুর ইউনিয়ন ৫ নম্বর ওয়ার্ডের আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মীর খোরশেদ আলমের নির্দেশে মসজিদভিত্তিক শিশু ও গণশিক্ষা কার্যক্রমের শিক্ষক একরাম হোসেন গ্রহন করেন। তিনি টাকা তুলে আবার মসজিদ কমিটির সভাপতি কাছেই জমা দেন। এদিকে নিজের প্রাপ্য টাকা পেতে ইমাম আবু সাইদ ৩১ মে সকালে সভাপতি খোরশেদ আলমের কাছে যান। এ সময় খোরশেদ তাকে টাকা না দিয়ে নানা অজুহাত দেখান। এ নিয়ে কথা কাটাকাটি হয় তাদের। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে বিকালে ইমাম আবু সাইদকে চাকুরিচ্যুত করেন মসজিদের সভাপতি। তবে বিষয়টি এলাকায় জানাজানি হলে পরদিন অনুদানের ৩ হাজার টাকা ওই ইমামকে দেন তিনি।

ইমাম আবু সাইদ জানান, ২০১৯ সালের ১ মার্চ তিনি ওই মসজিদে চাকুরি পান। সেই থেকে তিনি মসজিদে ইমামতি করে আসছিলেন। অনুদানের টাকা চাওয়ার কারণে তাকে চাকুরিচ্যুত হতে হবে, এমনটি ভাবতে পারেননি তিনি।

এ বিষয়ে মসজিদ কমিটির সভাপতি মীর খোরশেদ আলম বলেন, ‘আমাদের মসজিদের অবস্থা ভাল না হওয়ায় ওই টাকা মসজিদের উন্নয়ন কাজে ব্যয় করতে চেয়েছিলাম। তবে ইমাম টাকা চাওয়ায় তাকে ও মুয়াজ্জিনকে তাদের প্রাপ্য টাকা দিয়ে দিয়েছি।’ ইমামের চাকরিচ্যুতির প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘ওই ইমামকে ঈদের আগেই বাদ দিতে চেয়েছিলাম। বিভিন্ন কারণে দেওয়া হয়নি। এখন তাকে বাদ দিয়ে আমরা নতুন ইমাম নিয়েছি।’

এ বিষয়ে মাগুরা ইসলামিক ফাউন্ডেশনের সহকারি পরিচালক মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান বলেন, ‘সিংহডাঙ্গা মসজিদের সভাপতির প্রতিনিধির হাতে আমরা টাকা তুলে দিয়েছি। এটি বিতরণ নিয়ে কোন জটিলতা হলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তবে ইমাম সাহেবের চাকুরিচ্যুতির বিষয়টি মসজিদ কমিটির এখতিয়ারভুক্ত। আমাদের কিছু করার নেই’।