সিরাজগঞ্জের তাড়াশে বাড়িতে অন্যের ছাগল ঢোকায় সোনেকা খাতুন নামের এক গৃহবধূ ছাগলটির রগ কেটে দিয়েছেন। উপজেলার সগুনা ইউনিয়নের চরকুশাবাড়ী গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। 

ছাগলটির মালিক ওই গৃহবধূর বিরুদ্ধে থানায় জিডি করেছেন। পুলিশ ও স্থানীয় সুত্রে জানা গেছে, ওই গ্রামের মুনসুর বিশ্বাস পেশায় ভাংড়ি জিনিসপত্র কেনার ফেরিওয়ালা। আর তার অভাবের সংসারে স্বচ্ছলতা আনতে তার স্ত্রী জয়নব খাতুন দুই বছর ধরে একটি ছাগল লালনপালন করে আসছিলেন। যার ওজন প্রায় ৩৫-৪০ কেজির মত। যা ইতিমধ্যেই ১৮ হাজার টাকা পর্যন্ত দাম উঠেছে। ছাগলটি প্রতিবেশি মকবুল বিশ্বাসের বাড়িতে প্রায় ঢুকে গাছপালা খেয়ে থাকে। যা নিয়ে ওই দুই পরিবারের মধ্যে প্রায়ই কথাকাটি হয়। বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টার দিকে আবারও জয়নব খাতুনের ছাগলটি সেই প্রতিবেশি বাড়িতে ঢুকে পড়ে। এসময় মকবুলের স্ত্রী সোনেকা খাতুন ধারালো দা দিয়ে ছাগলটির পায়ের রগ কেটে দেয়। 

এ সময় ছাগটির চিৎকারের জয়নব ও তার ছেলে তুহিন এগিয়ে এসে ছাগলটিকে উদ্ধার করে কাছিকাটা বাজারে প্রাণী চিকিৎসক মতিনের কাছে নিয়ে যান। সেখানে ৫০০ টাকায় ছাগলের পায়ে প্লাস্টার শেষে একটি ভ্যান গাড়িতে তুলে তাড়াশ থানায় নিয়ে আসেন এবং জয়নব খাতুন কান্নাকাটি শুরু করেন। এ সময় পুলিশ তার অভিযোগ গ্রহণ করেন। 

তাড়াশ থানার ডিউটি অফিসার এএসআই শরিফুল ইসলাম বলেন, এ বিষয়ে তাড়াশ থানায় অভিযোগ দায়ের হয়েছে। বিষয়টি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।