গৃহবধূকে পিটিয়ে পা ভেঙে দেওয়ার ঘটনায় স্বামী গ্রেপ্তার

প্রকাশ: ১৬ জুলাই ২০২০     আপডেট: ১৬ জুলাই ২০২০   

ঈশ্বরগঞ্জ (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি

ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে যৌতুকের দাবিতে গৃহবধূ স্মৃতি আক্তারের (২৫) পিটিয়ে পা ভেঙে দেওয়ার ঘটনায় অভিযুক্ত স্বামী জাহাঙ্গীর আলমকে (৩৫) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার দুপুরে গাজীপুরের শ্রীপুর এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

এর আগে বুধবার বিকেলে বাদী হয়ে স্মৃতি আক্তার তার স্বামী , ভাসুর ও শ্বশুড়-শাশুড়িকে আসামি করে থানায় অভিযোগ দায়ের করেন। রাতেই মামলাটি নথিভুক্ত করা হয়।

লিখিত ওই অভিযোগ সূত্রে জানা যায়,  ৫ বছর আগে গৌরীপুর উপজেলার ডৌহাখলা ইউনিয়নের চুড়াইল গ্রামের রাজমিস্ত্রি শ্রমিক আমজাদ হোসেনের মেয়ে স্মৃতি আক্তারের সঙ্গে ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলার তারুন্দিয়া ইউনিয়নের বাখরিপাড়া গ্রামের চাঁন মিয়ার ছেলে ও পোশাক কারখানার সুপার ভাইজার জাহাঙ্গীর আলমের বিয়ে হয়। স্মৃতি তার স্বামীর দ্বিতীয় স্ত্রী। তাদের ঘরে সাব্বির রহমান নামে ৩ বছর বয়সী একটি পুত্র সন্তান রয়েছে।

অভিযোগে বলা হয়, বিয়ের পর থেকে স্মৃতির ওপর নানা বিষয় নিয়ে নির্যাতন চালাতো তার স্বামী জাহাঙ্গীর ও শ্বশুড় বাড়ির লোকজন। এর মধ্যে জাহাঙ্গীরের বাড়িতে ঘর নির্মাণের কাজ শুরু হলে স্মৃতির বাবার বাড়ি থেকে ২ লাখ টাকা আনার জন্য চাপ দেয় তার স্বামী। মেয়ের সুখের কথা চিন্তা করে জমি বিক্রি করে মেয়ে জামেইকে ১ লাখ ২০ হাজার টাকাও দেন স্মৃতির বাবা। কিন্তু কিছুদিন ধরে ফের দেড় লাখ টাকা চেয়ে স্মৃতির ওপর অত্যচার শুরু করে স্বামী ও শ্বশুর বাড়ি লোকজন। গত শুক্রবার দুপুরে শাশুড়ির সাথে কথা কাটাকাটির জের ধরে স্বামী জাহাঙ্গীর ও ভাসুর শাহজাহান মিয়া স্মৃতিকে রড দিয়ে পিটিয়ে ডান পা ভেঙে দেন। এছাড়া শরীরের বিভিন্ন অংশে জখম করেন খবর পেয়ে স্মৃতির মা তার বাবা আমজাদ হোসেনকে নিয়ে ঈশ্বরগঞ্জ থানায় যান। পরে পুলিশ গিয়ে স্মৃতিকে উদ্ধার করে । নির্যাতনের শিকার স্মৃতিকে প্রথমে ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ও পরে ময়মনসিংহ হাসপাতালে নেয়া হয়। চিকিৎসা শেষে বুধবার বিকেলে স্মৃতি বাদী হয়ে থানায় লিখিত অভিযোগ করেন।

ঈশ্বরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ( ওসি) মোখলেছুর রহমান আকন্দ বলেন, গৃহবধূকে অকথ্য নির্যাতনের অভিযোগে মামলা হয়েছে। প্রধান অভিযুক্ত জাহাঙ্গীর আলমকে গাজীপুরের শ্রীপুর এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।