সুন্দরগঞ্জের ৫০ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্যায় প্লাবিত

প্রকাশ: ২১ জুলাই ২০২০   

সুন্দরগঞ্জ (গাইবান্ধা) প্রতিনিধি

বিদ্যালয়ের মাঠে মাছ শিকার করছেন কয়েকজন -সমকাল

বিদ্যালয়ের মাঠে মাছ শিকার করছেন কয়েকজন -সমকাল

গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলায় দ্বিতীয় দফা বন্যায় ৫০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্লাবিত হয়েছে। এর মধ্যে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ৩৯টি এবং মাধ্যমিক স্কুল ও মাদরাসা ১১টি। 

কয়েকদিনের টানা অবিরাম বর্ষণ এবং উজানের ঢলে উপজেলার তারাপুর, বেলকা, হরিপুর, চন্ডিপুর, কঞ্চিবাড়ি, শান্তিরাম, শ্রীপুর ও কাপাসিয়া ইউনিয়নের ওপর দিয়ে প্রবাহিত তিস্তা নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় দ্বিতীয় দফা বন্যা দেখা দেয়। এতে ৭টি ইউনিয়নের বিভিন্ন চরের কমপক্ষে ১২ হাজার পরিবারের ৪৬ হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়ে। পাশাপাশি ৫০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মাঠ এবং শ্রেণিকক্ষ পানিতে ডুবে যায়। 

এদিকে দীর্ঘদিন ধরে পানি জমে থাকায় প্রতিষ্ঠানের ব্যাপক ক্ষতি সাধন সম্ভবনা দেখা দিয়েছে। যদিও করোনা পরিস্থিতির কারণে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মাঠে স্থানীয়দের মাছ শিকার করতে দেখা গেছে। 

উপজেলার নাজিমাবাদ বিএল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রফিকুল ইসলাম জানান, তার বিদ্যালয় মাঠে মঙ্গলবার পর্যন্ত ২ হতে ৩ফিট পানি রয়েছে। এ ছাড়া শ্রেণিকক্ষে হাঁটু পানি। সে কারণে আসবাবপত্র নষ্ট হওয়ার সম্ভবনা রয়েছে। 

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার হারুন-উর রশিদ জানান, চরাঞ্চলসহ বিভিন্ন নিচু এলাকার ৩৯টি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্লাবিত হয়েছে। এ সংক্রান্ত তথ্য অধিদপ্তরে পাঠানো হয়েছে। 

উপজেলা একাডেমিক সুপারভাইজার বেলাল হোসেন জানান, মাধ্যমিক স্তরের প্রায় ১১টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্যায় প্লাবিত হয়েছে। 

উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা কাজী লুতফুল হাসান জানান, বন্যায় নিমজ্জিত প্রতিষ্ঠান সমূহের তালিকা অধিদপ্তরে পাঠানো হয়েছে।