পঞ্চগড়ে ভিজিএফের ২৯ বস্তা চাল জব্দ

প্রকাশ: ২৮ জুলাই ২০২০   

পঞ্চগড় প্রতিনিধি

পঞ্চগড় সদর উপজেলার হাফিজাবাদ ইউনিয়নের তালমা বাজার সংলগ্ন দুটি গুদাম থেকে ২৯ বস্তা (৩০ কেজির বস্তা) ভিজিএফের চাল উদ্ধার করেছে উপজেলা প্রশাসন। চাল জব্দ করে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের হেফাজতে রাখা হয়েছে। এ ঘটনায় সহকারি কমিশনার (ভূমি) মো. আমিনুল ইসলামকে প্রধান করে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। 

সোমবার স্থানীয়রা চালের বস্তা আটক করে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে খবর দিলে তারা ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে এই অভিযান পরিচালনা করেন। এ সময় সেখান থেকে দুইজন ব্যবসায়ী ও এক ভ্যানচালককে আটক করা হয়। পরে মুচলেকা নিয়ে তাদের ছেড়ে দেওয়া হয়। 

উপজেলা প্রশাসন সূত্র জানায়, ঈদ উপলক্ষে জেলার সদর উপজেলার হাফিজাবাদ ইউনিয়ন পরিষদের পক্ষে গরীব ও দুস্থ মানুষদের মাঝে খাদ্য সহায়তা হিসেবে ৩ হাজার ৪০০ জনের প্রতিজনের মাঝে ১০ কেজি করে ভিজিএফের চাল বিতরণ করা হয়। বিতরণের কিছুক্ষণ পরেই হাফিজাবাদ ইউনিয়নের তালমা বাজার সংলগ্ন মোজাম্মেল হাজীর গুদামে চাল ব্যবসায়ী আব্দুর রহিম ও আব্দুর রহমান সরকারি এসব চাল নিয়ে যান। পরে তারা সরকারি বস্তা থেকে সাধারণ বস্তায় চালগুলো স্থানান্তর করছিলেন। বিষয়টি স্থানীয়রা সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আরিফ হোসেনকে জানান। উপজেলা চেয়ারম্যান আমিরুল ইসলামসহ পুলিশ কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে যান। সেখানে গিয়ে তারা মোজাম্মেল হাজী ও আব্দুর রহিমের গুদাম থেকে ভিজিএফের সরকারি বস্তাসহ ২৯ বস্তা চাল উদ্ধার করেন।

হাফিজাবাদ ইউপি চেয়ারম্যান গোলাম মুছা কলিমুল্লাহ জানান, হাফিজাবাদ ইউনিয়নের ৩ হাজার ৪০০ মানুষের মাঝে ঈদ উপলক্ষে ১০ কেজি করে চাল বিতরণ করা হয়। প্রতি তিনজনের জন্য ৩০ কেজির একটি করে বস্তা বিতরণ করা হয়। বাইরে এই চাল কিভাবে পাওয়া গেল আমি জানি না। জব্দকৃত চাল আমার হেফাজতে রাখা হয়েছে। 

সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আরিফ হোসেন বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে দুটি গুদাম থেকে ২৯ বস্তা চাল জব্দ করে ইউনিয়ন পরিষদের হেফাজতে রাখা হয়েছে। চাল ব্যবসায়ীরা উপকারভোগীদের কাছ থেকে কিনে নিয়েছেন বলে জানিয়েছেন। আমরা এ ঘটনায় সদর উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) মো. আমিনুল ইসলামকে প্রধান করে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছি। তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনের আলোকে পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।