খাদ্য ও অর্থ সহায়তার নামে র‌্যাব সেজে প্রতারণা

প্রকাশ: ২৮ জুলাই ২০২০     আপডেট: ২৮ জুলাই ২০২০   

হরিণাকুণ্ডু(ঝিনাইদহ) প্রতিনিধি

আপনি কি মেয়র বলছেন! আপনি কি কাউন্সিলর বলছেন! আমি র‌্যাব যশোর অফিস থেকে বলছি। আমরা করোনাকালে অসহায় মানুষকে খাদ্য ও অর্থ সহায়তা করতে চাই! আপনারা আমাদের সহায়তা করুন। আপনাদের পৌরসভার প্রতিটি ওয়ার্ডের ৫ জন করে অসহায় মানুষকে দেওয়া হবে এসব সহায়তা! যদি বেশি মানুষকে সহায়তা দিতে চান তাহলে কিছু খরচ দিলে বাড়ানো হবে ভুক্তভোগীর সংখ্যা!

এভাবেই র‌্যাব পরিচয়ে প্রতারণা করে ঝিনাইদহের হরিণাকুণ্ডু পৌরসভার বেশ কয়েকজন ওয়ার্ড কাউন্সিলরের কাছ থেকে অন্তত ৫০ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়েছে একটি প্রতারক চক্র।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গত ৩/৪দিন ধরে পৌর মেয়র শাহিনুর রহমান রিন্টুসহ ১২জন ওয়ার্ড কাউন্সিলরের কাছে ০১৭৯৯৬৭৯৩৯৯ ও ০১৭৯৯৮০৭৭৫৩ নাম্বার থেকে শফিক নামে এক প্রতারক যশোর র‌্যাব কার্যালয়ের কর্মকর্তা পরিচয়ে ফোন দেন। ফোনে ওই প্রতারক র‌্যাব ও রেডক্রিসেন্ট সোসাইটির পক্ষ থেকে পৌরসভার ৯ টি সাধারণ ও ৩টি সংরক্ষিত ওয়ার্ডের ৫ জন করে অসহায় মানুষকে চাল, ডাল, তেল ও নগদ ৬ হাজার টাকা করে দেওয়া হবে বলে তালিকা নেন। গত মঙ্গলবার পৌরসভা কার্যালয়ে এসব সহায়তা নিতে আসতে বলা হয় ওইসব অসহায় মানুষকে।

হরিণাকুণ্ডু পৌরসভার ১ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ফারুক হোসেন জানান, গত কয়েকদিন ধরেই র‌্যাব যশোর কার্যালয়ের কর্মকর্তা পরিচয়ে তাদের প্রত্যেক কাউন্সিলরের কাছে ফোন দেওয়া হয়েছে। করোনাকালে অসহায় মানুষকে খাদ্য ও নগদ অর্থ সহায়তার জন্য প্রতি ওয়ার্ড থেকে ৫ জন করে মানুষকে এসব সহায়তার কথা বলা হয়।  তিনি আরও জানান, মঙ্গলবার এসব সহায়তা দেওয়ার কথা ছিল। এ কারণে তারা ওইদিন এসব অসহায় মানুষকে সহায়তা দিতে পৌরসভা কার্যালয়ে নিয়ে যান। কিন্তু সকাল থেকেই ওই মোবাইল নাম্বার দুটি বন্ধ পাওয়া যায়। পরে বুঝতে পারেন এটি একটি প্রতারক চক্রের কাজ।

হরিণাকুণ্ডু পৌরসভার মেয়র শাহিনুর রহমান রিন্টু জানান, তিনিসহ সব কাউন্সিলরের কাছে র‌্যাব পরিচয়ে ফোন দেওয়া হয়েছিলো। প্রথমে প্রতি ওয়ার্ডে ৫ জন মানুষকে খাদ্য ও নগদ সহায়তা দেওয়ার কথা বলা হয়। পরে ভুক্তভোগীর সংখ্যা বাড়ানোর কথা বলে কয়েকজন ওয়ার্ড কাউন্সিলরের কাছ থেকে প্রায় ৫০ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়েছে ওই প্রতারক চক্র। ০১৬৪৫০৫৮৪৬২ নাম্বারে বিকাশে কাউন্সিলররা ওই প্রতারককে টাকা পাঠিয়েছেন বলেও তিনি জানান। তিনি বলেন, এ ব্যাপারে থানায় জিডি করা হয়েছে ।
 
এ বিষয়ে র‌্যাব-৬ ঝিনাইদহের কোম্পানি কমান্ডার সিনিয়র এএসপি সোহেল পারভেজ বলেন, এটি একটি প্রতারক চক্রের কাজ। ওই প্রতারক চক্রকে ধরতে আমরা কাজ করছি। তিনি আরও বলেন, যখন প্রতারক চক্র অর্থ দাবি করে তখন যদি তারা আমাদের জানাতেন তাহলে এভাবে তাদেরকে প্রতারিত হতে হতো না।