বাবা-মাকে বেঁধে মেয়েকে তুলে নিয়ে ধর্ষণ, গ্রেফতার ৩

প্রকাশ: ০৯ আগস্ট ২০২০   

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি

গ্রেফতাররা -সমকাল

গ্রেফতাররা -সমকাল

দস্যুতা ও বাবা-মাকে বেঁধে রেখে নবম শ্রেণিতে পড়ুয়া কিশোরীকে মেয়েকে তুলে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণের ঘটনায় জড়িত অভিযোগে ৩ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

তারা হলেন- কুড়িগ্রামের রাজারহাট উপজেলার পীরমামুদ গ্রামের মৃত আব্দুল গফুরের ছেলে আবুল কালাম আজাদ (৩৮), একই উপজেলার ছিনাইহাট বড়গ্রামের মৃত উমর আলীর ছেলে আব্দুস সালাম (৪২) এবং পার্শবর্তী লালমনিরহাট জেলার সিংগাদার গ্রামের আব্দু্ল মালেক (৩৮)। 

রোববার দুপুর ১২টার দিকে জেলা পুলিশ অফিসের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মহিবুল ইসলাম খান ওই ৩ জনকে গ্রেফতারের বিষয়টি জানান। এ সময় অন্যান্যদের মধ্যে সদর থানার ওসি মো. মাহফুজার রহমান, রাজারহাট থানার ওসি মো. রাজু আহমেদ এবং মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও রাজারহাট থানার ইন্সপেক্টর (তদন্ত) পবিত্র কুমার উপস্থিত ছিলেন।

পুলিশ সুপার জানান, মাত্র দু'সপ্তাহের মধ্যে ব্যাপক অনুসন্ধান চালিয়ে আসামিদের শনাক্ত করে গ্রেফতার করা হয়েছে। এদের মধ্যে প্রথমে আব্দুল মালেককে লালমনিরহাটের সদর উপজেলার মহেন্দ্রনগর এলাকা থেকে গত বৃহস্পতিবার গ্রেফতার করা হয়। এরপর তার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী আব্দুস সালামকে শুক্রবার ভূরুঙ্গামারী থেকে গ্রেফতারের পর আদালতে সোপর্দ করে ৫ দিনের রিমান্ডে আনা হয়েছে। এরপর আবুল কালাম আজাদকে নাগেশ্বরী উপজেলার রায়গঞ্জ ইউনিয়নের হাজির মোড় এলাকা থেকে শনিবার রাতে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাকে রোববার আদালতে সোপর্দ করে রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন করা হলে ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করা হয়েছে। প্রাথমিকভাবে গ্রেফতাররা ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছে। 

উল্লেখ্য, জেলার রাজারহাট উপজেলার ছিনাই ইউনিয়নের মহিধর খন্ডক্ষেত্র গ্রামে গত ২৬ জুলাই মধ্যরাতে মুষলধারে বৃষ্টি এবং বিদ্যুৎ না থাকার সুযোগে একটি বাড়ির দরজা ভেঙে ঘরে প্রবেশ করে তিন যুবক। ঘরে ঢুকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে বাবাকে জখম করার পাশাপাশি মারধর করে অজ্ঞান করে ফেলে। এ সময় বাঁধা দিতে গেলে মাকেও মারধর করে ঘরের ভিতরে থাকা শোবার খাটের সঙ্গে বেঁধে ফেলে। আলমিরা ভেঙে ২ লাখ টাকা এবং ২ ভরি স্বর্ণালঙ্কার লুট করে। এরপর পাশের কক্ষের দরজা ভেঙে ঢুকে নবম শ্রেণিতে পড়ুয়া কিশোরীকে বাড়ির আধা কিলোমিটার দূরের ইউক্লিপটাস গাছের বাগানে নিয়ে গিয়ে  ধষর্ণ করা হয়। এ ঘটনায় গত ২৭ জুলাই কিশোরীর বাবা বাদি হয়ে অজ্ঞাত ৩ জনকে আসামি করে থানায় মামলা দায়ের করেন।