চাকরি জাতীয়করণের দাবিতে আগামী ২৩ আগস্ট থেকে রাজধানীতে অনির্দিষ্টকালের জন্য 'মহাঅবস্থান' কর্মসূচি পালন করতে যাচ্ছেন বেসরকারি শিক্ষকরা। মঙ্গলবার চাকরি জাতীয়করণের দাবিতে শিক্ষক কর্মচারী ঐক্যজোটের নয়াপল্টন কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলন থেকে এ কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে শিক্ষক কর্মচারী ঐক্যজোটের চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ মো. সেলিম ভূঁইয়া বলেন, কভিড-১৯-এর কারণে আজ বিপর্যস্ত শিক্ষা ব্যবস্থা। প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকার কারণে ছাত্রছাত্রীদের বেতন আদায় করা সম্ভব হচ্ছে না। ফলে শিক্ষক-কর্মচারীরা প্রতিষ্ঠান-প্রদত্ত বেতনও পাচ্ছেন না। অনেক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ফান্ড থাকা সত্ত্বেও শিক্ষকদের বেতন না দেওয়ার সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানান তিনি। গত ঈদুল আজহায় বেসরকারি শিক্ষক-কর্মচারীদের জুলাই মাসের বেতন ও পূর্ণাঙ্গ উৎসব ভাতা না দেওয়ারও তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানানো হয় সংবাদ সম্মেলনে।
শিক্ষক নেতারা বলেন, বর্তমানে যে হারে শিক্ষকরা নির্যাতিত হচ্ছেন, চাকরি হারাচ্ছেন তা ভাষায় বর্ণনা করা যায় না। রাজনৈতিক দলের লোকজন অর্থের বিনিময়ে বেসরকারি স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসায় অযোগ্য ব্যক্তিদের চাকরি দিচ্ছেন। এ অবস্থা থেকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে রক্ষা করতে হলে যত দ্রুত সম্ভব বেসরকারি শিক্ষক-কর্মচারীদের চাকরি জাতীয়করণ করতে হবে।
নেতারা বলেন, চাকরি জাতীয়করণের দাবিতে আমরা সরকারকে আলটিমেটাম দেওয়া সত্ত্বেও সরকার আমাদের দাবির প্রতি সামান্য সহানুভূতিশীল হয়নি। এমনকি আমাদের সঙ্গে কোনো ধরনের আলোচনার প্রয়োজনীয়তাও অনুভব করেনি। তাই বাধ্য হয়ে আমরা আগামী ২৩ আগস্ট থেকে ঢাকায় মহাঅবস্থানের ঘোষণা দিচ্ছি। সরকার থেকে চাকরি জাতীয়করণের ঘোষণা না দেওয়া পর্যন্ত আন্দোলন অব্যাহত থাকবে।
সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন মাওলানা মো. দেলোয়ার হোসেন, জাকির হোসেন, প্রিন্সিপাল আবদুর রহমান, অধ্যাপক কাজী মাঈনুদ্দিন, অধ্যাপক রকিব উদ্দিন, অধ্যাপক রাশেদুল ইসলাম, অধ্যাপক জানে আলম দীপু, সিরাজুল আলম, লুৎফর রহমান, সানু মিয়া, সোলায়মান চৌধুরী প্রমুখ।