পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুটে নাব্যতা সংকট, নদীতে স্রোত ও ঘাটের সমস্যার কারণে ফেরি চলাচল ব্যাহত হচ্ছে। এতে প্রায় দেড় সপ্তাহ ধরে ঘাট এলাকায় তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। ফলে যাত্রীদের ঘাট এলাকায় এসে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। 

বুধবার সকালে পাটুরিয়া ঘাট এলাকা ও আরিচা-ঢাকা মহাসড়কের উথলীর মোড় পর্যন্ত প্রায় ৮ শতাধিক ট্রাক পারাপারের অপেক্ষায় থাকতে দেখা গেছে। তবে যাত্রীবাহী বাসের চাপ কম দেখা যায়। 

পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া রুটে ফেরি চলাচল ব্যাহত হওয়ায় প্রতিদিনই ৩-৪ কিলোমিটার যানজটের সৃষ্টি হয়। এর মধ্যে ঘাটে যানবাহনের চাপ বেশি হলে ৭-৮ কিলোমিটারও বেশি যানজটের সৃষ্টি হয়। তখন ফেরি পারাপারে বিভিন্ন যানবাহনের যাত্রীদের ঘাটে এসে ৬-৭ ঘণ্টা করে অপেক্ষায় থেকে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হয়। 

এদিকে, নাব্যতা সংকটের কারণে গত প্রায় দুই মাস ধরে পাটুরিয়া ফেরিঘাটের বেসিনে ড্রেজার দিয়ে পলি অপসারণ করায় ফেরিগুলো ঘাটে ভিড়তে সমস্যা হচ্ছে। ঘাটের পকেট বন্ধ রেখে ড্রেজিং করায় ফেরি যানবাহন অনেক কম পারাপার হচ্ছে। ফেরিগুলো সরাসরি ঘাটে ভিড়তে পারছে না। এ কারণে ঘাটে ফেরি ভিড়তে সময় বেশি লাগছে।

গত তিনদিন ধরে পাটুরিয়া ঘাটে ফেরি পারাপারের জন্য অপেক্ষায় থাকা ট্রাকচালক জাহিদুল ইসলাম জানান, সোমবার পাটুরিয়া ঘাটে এসে যানজটে পড়েছেন। কিন্ত ঘাটে যানজটের কারণে বুধবার সকাল ৮টায়ও ফেরিতে উঠতে পারেননি তিনি। এরকম প্রায় ৮ শতাধিক ট্রাক ও কিছু বাস ফেরি পারাপারের অপেক্ষায় রয়েছে। 

আরিচা আফিসের বিআইডব্লিউটিসির ডিজিএম জিল্লুর রহমান জানান, পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া রুটে নাব্যতা ঘাট এলাকায় কয়েকশ’ ট্রাক পারাপারের অপেক্ষায় রয়েছে। তবে বাসের চাপ কম আছে। এ নৌরুটে চলাচলরত ১৯টি ফেরির দুইটি ফেরি বিকল থাকায় ১৭ ফেরি দিয়ে যানবাহন পারাপার করা হচ্ছে।