ফরিদপুরের ভাঙ্গায় সড়ক দুর্ঘটনায় একই পরিবারের দুইজন নিহত হয়েছেন। এসময় আরও ৯ জন আহত হয়েছেন। শুক্রবার সন্ধ্যায় ঢাকা-ভাঙ্গা-খুলনা মহাসড়কের মুনসুরাবাদ এলাকায় এই দুর্ঘটনা ঘটে। 

খবর পেয়ে ভাঙ্গা হাইওয়ে পুলিশ ও ভাঙ্গা ফায়ার সার্ভিসের দল ঘটনাস্থলে পৌঁছে নিহতদের মরদেহ উদ্ধার করেছে। এ সময় আহতদের প্রথমে ভাঙ্গা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হলে ৭ জনকে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজে রেফার্ড করা হয়। তাদের মধ্যে শিশুসহ ২ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় রাতেই তাদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

নিহতরা হলেন- গোপালগজ্ঞ জেলার রাজপাট বরইতলা গ্রামের প্রয়াত বাচ্চু ফকিরের স্ত্রী রাজিয়া বেগম (৬০) ও ছেলে মনির ফকিরের স্ত্রী মীনা বেগম (৪৫)। আহতরা হচ্ছেন নিহত মিনা বেগমের মেয়ে মিতু (২৫), মেয়ে জামাই শফিউল (৩০), নাতি ফাহিম (৮) ছেলে হৃদয় (১৫), ভাসুরের মেয়ে রোমা (২৫), ছেলে  রাকিব (১৮) ও মোহাম্মাদ আলী(৫) এবং একই গ্রামের উজির আলীর ছেলে মাহিন্দ্র চালক কামরুল(৪৭)।

নিহত রাজিয়া বেগমের নাতী রাকিব বলেন, আমরা শুক্রবার সকালে একটি মাহিন্দ্র নিয়ে আটরশির জাকের মঞ্জিলে এসেছিলাম। বিকালে বাড়ি ফেরার পথে পেছন থেকে একটি বাস আমাদের চাপা দিয়ে চলে যায়। এতে আমার দাদি ও চাচি নিহত হয়। 

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে ভাঙ্গা হাইওয়ে থানার উপ-পরিদর্শক ও ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জুয়েল রানা বলেন, চালকসহ একই পরিবারের ১০ থেকে ১১ জন একটি মাহিন্দ্র যোগে কাশিয়ানিতে ফিরছিলেন। পথে মুনসুরাবাদ এলাকায় পৌঁছালে পেছন থেকে অজ্ঞাত একটি বাস তাদের চাপা দিয়ে পালিয়ে যায়। এ সময় দু’জনের মৃত্যু হয়। নিহতদের মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এ বিষয়ে মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।