কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলার ভাঙ্গামোড় ইউনিয়নের রাঙ্গামাটি সড়কের মাঝখানে বন্যার পানির স্রোতে ভেঙে গিয়ে গভীর গর্তের সৃষ্টি হয়। কলাগাছের ভেলা দিয়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে পার হতে হচ্ছিল রাস্তার দু’পাড়ের মানুষকে। প্রশাসনকে থেকে তাদের কেউ খোঁজ নেয়নি, সেতু তৈরির উদ্যোগও নেওয়া হয়নি। তাই এলাকার ৩০ হাজার মানুষের কষ্ট লাঘবে নিজেরাই উদ্যোগ নিয়ে তৈরি করেছেন বাঁশের সাঁকো। 

এলাকার অধিবাসী আজিজুল ইসলাম ও রফিকুল ইসলাম জানান, শহরে যাওয়ার জন্য এলাকার পূর্ব প্রান্তের এই রাস্তাটি আমাদের একমাত্র পথ। প্রথম দু-দফা বন্যায় রাস্তাটির কিছু অংশ ভেঙে পড়লে তা মেরামত করা হয়। পনের দিন আগের বানের পানির স্রোতে রাস্তার মাঝ পথে ভেঙে বড় গর্তের সৃষ্টি হয়। ফলে চরম দুর্ভোগে পড়েন এলাকার লোকজন। কলাগাছের ভেলা দিয়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে রাস্তা পার হতে হচ্ছিল। খাল ভরাটের জন্য বিভিন্ন জায়গায় যোগাযোগ করা হয়েছে কিন্তু কেউই সারা দেয়নি, সেতু তৈরিরও উদ্যোগ নেয়নি কেউ। তাই বাধ্য হয়ে বাড়ি বাড়ি গিয়ে সংগ্রহ করা হয়েছে চাল, টাকা ও বাঁশ। এরপর নিজেরাই বানিয়ে ফেলি সাঁকো।

ভাঙ্গামোড় ইউপি চেয়ারম্যান লুৎফর রহমান বাবু বলেন, নিজেদের উদ্যোগে বাঁশের সাঁকো তৈরীর খবর পেয়ে আমি সেখানে গিয়ে সামনে বরাদ্দ দিয়ে উৎসাহ দিয়েছি। এ বিষয়টি উপজেলা প্রশাসনকে জানানো হয়েছে।

ফুলবাড়ী উপজেলা নির্বাহী অফিসার তৌহিদুল রহমান জানান, বিষয়টি আমাকে অবগত করা হয়েছে। খাল ভরাটের দ্রুত ব্যবস্থা নেয়া হবে। 

বিষয় : কুড়িগ্রাম ফুলবাড়ী বন্যা

মন্তব্য করুন