চার দেশের মধ্যে রেল যোগাযোগ স্থাপন করা হবে: রেলমন্ত্রী

প্রকাশ: ১৫ অক্টোবর ২০২০     আপডেট: ১৫ অক্টোবর ২০২০   

 পঞ্চগড় প্রতিনিধি

রেলমন্ত্রী অ্যাডভোকেট নূরুল ইসলাম সুজন বলেছেন, বাংলাদেশের সঙ্গে ভারতের মধ্যে ট্রেন সার্ভিস চালুর পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। আন্তর্জাতিক যোগাযোগ ব্যবস্থা চালুর ক্ষেত্রে পঞ্চগড় থেকে ভারতের শিলিগুড়ি পর্যন্ত ট্রেন সার্ভিস চালুর প্রক্রিয়া চলছে। ভবিষ্যতে বাংলাবান্ধার সঙ্গে ভারত নেপাল, ভুটান ও বাংলাদেশের মধ্যে রেল যোগাযোগ ব্যবস্থা চালু করা হবে। এর ফলে যোগাযোগ ব্যবস্থার পাশাপাশি ব্যবসা-বাণিজ্যও সম্প্রসারিত হবে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে পঞ্চগড় বীর মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল ইসলাম রেলওয়ে স্টেশন থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে পঞ্চগড়-রাজশাহী রুটে বাংলাবান্ধা এক্সপ্রেস নামে আন্তনগর ট্রেন চলাচল উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। রেলওয়ের পশ্চিমাঞ্চলের মহাব্যবস্থাপক মিহির কান্তি গুহের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে পঞ্চগড়-১ আসনের সংসদ সদস্য মজাহারুল হক প্রধান, রেল সচিব সেলিম রেজা, জেলা প্রশাসক ড. সাবিনা ইয়াসমিন, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ইউসুফ আলী, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আনোয়ার সাদাত সম্রাট বক্তব্য দেন।

রেলমন্ত্রী সুজন বলেন, ১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর রেলপথকে সম্পুর্ণভাবে ধ্বংস করে দেওয়া হয়েছে। রেলপথকে আধুনিকিরণসহ রেলসেবা জনগণের দোড়গোড়ায় নিয়ে যেতে কাজ শুরু করেছে সরকার। পঞ্চগড়, ঠাকুরগাঁও ও দিনাজপুর জেলার মানুষের দীর্ঘদিনের দাবির প্রেক্ষিতে বাংলাবান্ধা এক্সপ্রেস আন্তনগড় ট্রেনটি পঞ্চগড় থেকে রাজশাহী সরাসরি চালু করা হলো। আগামী ১৬ ডিসেম্বর বাংলাদেশ ও ভারতের চিলাহাটি-হলদিবাড়ি ট্রেন চলাচল চালু হবে। দুই দেশের প্রধানমন্ত্রী এর উদ্বোধন করবেন।

পঞ্চগড় রেলওয়ে সূত্র জানায়, প্রতিদিন সকাল সাড়ে ৮টায় ‘বাংলাবান্ধা এক্সপ্রেস’ পঞ্চগড় থেকে রাজশাহীর উদ্দেশে ছেড়ে যাবে। বিকাল সাড়ে ৫ টায় ট্রেনটি রাজশাহী পৌঁছবে। এছাড়া রাত ৯ টা ১৫ মিনিটে রাজশাহী থেকে পঞ্চগড়ের উদ্দেশে ছেড়ে ভোর ৫ টা ১০ মিনিটে আবার পঞ্চগড়ে পৌঁছাবে। রাজশাহী হতে প্রতি শুক্রবার এবং পঞ্চগড় থেকে প্রতি শনিবার সাপ্তাহিক ছুটি হিসেবে ট্রেন চলাচল বন্ধ থাকবে। ‘বাংলাবান্ধা এক্সপ্রেস’ পঞ্চগড়, কিসমত, রুহিয়া, ঠাকুরগাঁও, শিবগঞ্জ, পীরগঞ্জ, সেতাবগঞ্জ, দিনাজপুর, চিরিরবন্দর, পার্বতীপুর, ফুলবাড়ি, বিরামপুর, হিলি, পাঁচবিবি,জয়পুরহাট, আক্কেলপুর, সান্তাহার, আহসানগঞ্জ, মাধনগর, নাটোর, আব্দুলপুরসহ ২১ টি স্টেশনে থামবে। একইভাবে ফিরতি পথে এসব স্টেশনে যাত্রা বিরতি করবে। সুলভ শ্রেণির ভাড়া ১৭০ টাকা, শোভন ২৮০ টাকা, শোভন চেয়ার ৩৩৫ টাকা, প্রথম শ্রেণির ৪৪৫ টাকা, প্রথম শ্রেণির বাথ ৬৬৫ টাকা, সিগ্ধা ৫৫৫ টাকা (ভ্যাট ব্যতিত), এসি ৬৬৫ টাকা (ভ্যাট ব্যতিত), এসি বার্থ ৯৯৫ টাকা (ভ্যাট ও বেডিং চার্জ ব্যতিত) নির্ধারণ করা হয়েছে। খ শ্রেণির এই ট্রেনে ৫০৮ জন যাত্রী পরিবহন করতে পারবেন।