এক অভিজ্ঞতায় দুই পদোন্নতির অভিযোগ, অধ্যাপকের ডিন পদ স্থগিত

প্রকাশ: ১৯ অক্টোবর ২০২০     আপডেট: ১৯ অক্টোবর ২০২০   

ত্রিশাল (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

ময়মনসিংহের ত্রিশালে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞান ও প্রকৌশল অনুষদের কম্পিউটার সায়েন্স ও প্রকৌশল (সিএসই) বিভাগের শিক্ষিকা অধ্যাপক ড. জান্নাতুল ফেরদৌসের বিরুদ্ধে একই অভিজ্ঞতায় দুইবার পদোন্নতি নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। অভিযোগ ওঠার পর তার ডিনপদটি স্থগিত করেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের ৭১তম সিন্ডিকেট। ওই সভায় তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেটের সদস্য সচিব ও ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার কৃষিবিদ ড. হুমায়ুন কবীর।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা যায়, ২০১০ সালে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ে কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে লেকচারার পদে যোগদান করেন ড. জান্নাতুল ফেরদৌস। ২০১১ সালে তিনি সহকারী অধ্যাপক ও ২০১৭ সালে সহযোগী অধ্যাপক হিসেবে পদোন্নতি পান। চলতি বছরের ২০ জানুয়ারি অধ্যাপক হিসেবে পদোন্নতি দিয়ে তাকে বিভাগীয় প্রধান করা হয়। এরপর গত ১৯ আগস্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের ৭০তম সিন্ডিকেট সভায় বিজ্ঞান অনুষদের ডিনের দায়িত্বও দেওয়া হয় তাকে। উল্লেখ্য যে, বিজ্ঞান অনুষদে কোনো বিভাগের শিক্ষক হিসেবে তিনিই এই প্রথম ডিনের দায়িত্ব পেলেন। এর আগে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যই এই অনুষদের ডিনের দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন।

জানা গেছে, বিশ্ববিদ্যালয় নীতিমালা অনুযায়ী পদোন্নতির জন্য নিজস্ব জার্নাল প্রকাশসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের অতিরিক্ত কোন দায়িত্ব পালন করে থাকলে সেটা অভিজ্ঞতা হিসেবে প্রযোজ্য হয়। জান্নাতুল ফেরদৌস ২০১৬ সালে বিশ্ববিদ্যালয়ের অগ্নিবীনা হলের হাউজ টিউটর হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। আর সেই অভিজ্ঞতা সংযোজন করে সহযোগী অধ্যাপক হিসেবে পদোন্নতি নেওয়ার এক বছর পর সহযোগী অধ্যাপকের অভিজ্ঞতায় সংযোজিত হাউজ টিউটরের দায়িত্ব বাতিলের জন্য সিন্ডিকেটে আবেদন করেন। কিন্তু তা কার্যকর করে কোন চিঠি দেয়নি প্রশাসন। তবু পরবর্তীতে অধ্যাপক হিসেবে পদোন্নতি নেওয়ার সময় তিনি একই অভিজ্ঞতাকেই উল্লেখ করে শর্তপূরণ দেখিয়ে পদোন্নতি গ্রহণ করেন। 

এদিকে ৭০তম সিন্ডিকেট সভায় ড. জান্নাতুল ফেরদৌসকে ডিনের দায়িত্ব দেওয়ার পর, নিয়মবহির্ভুতভাবে তার পদোন্নতি ও জৈষ্ঠ্যতা নিয়ে নানা প্রশ্ন ও অভিযোগ তোলে প্ল্যানিং কমিটি এবং শিক্ষকরা। পরে সর্বশেষ ৭১তম সিন্ডিকেট সভায় তার ডিন পদটি স্থগিত করে তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়।

তদন্ত কমিটির সদস্যরা হলেন- অতিরিক্ত সচিব বেলায়েত হোসেন তালুকদার, ময়মনসিংহ বিভাগীয় কমিশনার মোস্তাফিজুর রহমান, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক জাকির হোসেন। ওই তিনজনই কবি নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেট সদস্য।

এ ব্যাপারে ড. জান্নাতুল ফেরদৌস বলেন, আমার পদোন্নতিতে আইনের কোনোরকম লঙ্ঘন হয়নি। আমি সহযোগী অধ্যাপক হওয়ার সময় হাউজ টিউটরের অভিজ্ঞতা প্রত্যাহারের আবেদন করেছিলাম। পরবর্তীতে ওই অভিজ্ঞতা ও হল প্রভোস্টের দায়িত্বের অভিজ্ঞতা নিয়ে আমি অধ্যাপক পদে পদোন্নতি পাই। সিন্ডিকেট আমাকে আগের সভায় ডিন হিসেবে দায়িত্ব দিয়ে, পরের সভায় তা স্থগিত করায় আমি মানসিকভাবে দুঃখ পেয়েছি এবং এটা আমার ক্যারিয়ারের জন্য লজ্জাজনক।

তদন্ত কমিটির সদস্য প্রফেসর ড. জাকির হোসেন বলেন, প্ল্যানিং কমিটির সুপারিশ ও শিক্ষকদের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের ৭১তম সিন্ডিকেট সভা জান্নাতুল ফেরদৌসের পদোন্নতির বিষয়টি যাচাই বাছাইয়ের জন্য তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্ত করে আমরা আগামী সিন্ডিকেট সভায় ওই প্রতিবেদন জমা দেব।