বিয়ের ৭ দিনের মাথায় বিষপানে বধূর মৃত্যু

প্রকাশ: ২৩ অক্টোবর ২০২০   

আড়াইহাজার (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি

প্রতীকী ছবি

প্রতীকী ছবি

নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে হাতের মেহেদির রং না শুকাতেই বিয়ের সাত দিনের মাথায় মুক্তা আক্তার নামের এক নববধূর বিষপানে মৃত্যু হয়েছে। শুক্রবার উপজেলার উপজেলার ফতেহপুর ইউনিয়নের কায়েমপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

গত ১৬ অক্টোবর পারিবারিকভাবেই মাহমুদপুর ইউনিয়নের কল্যান্দী বিলপাড় এলাকার প্রবাসী সেলিম মিয়ার ছেলে আল আমিনের সঙ্গে ফতেপুর ইউনিয়নের কায়েমপুর এলাকার আরেক প্রবাসী মোক্তার হোসেনের মেয়ে মুক্তা আক্তারের বিবাহ হয়। তারা সম্পর্কে ছিল মামাতো-ফুফাতো ভাইবোন। একে অপরকে পছন্দ করতেন। কিন্তু এক সপ্তাহের দাম্পত্য সম্পর্ক সৃষ্টি হতে না হতেই নববধূর বিষপানের ঘটনাটিকে নিয়ে এলাকার চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়।

নিহতের পরিবারের বরাত দিয়ে আড়াইহাজার থানার ওসি নজরুল ইসলাম জানান, শুক্রবার সকালে স্থানীয় স্বাস্থ্য কমপ্লেপ থেকে ঢাকায় নেওয়ার পথে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন নববধূ মুক্তা আক্তার। মুক্তার মা রহিমা বেগম কারও বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ করেননি। তা ছাড়া কী কারণে মুক্তা বিষপান করেছে, কারও সঙ্গে তার প্রেমের সম্পর্ক ছিল কিনা সে সম্পর্কে কিছুই বলতে পারেননি। 

ঘটনা সম্পর্কে মুক্তার মা বলেন, মুক্তা তার স্বামী আল আমিনকে নিয়ে বৃহস্পতিবার শ্বশুরবাড়ি থেকে পিত্রালয়ে বেড়াতে আসে। সারাদিন তারা ছিল হাসিখুশি। স্বামীর সঙ্গে মুক্তা নানা খুনশুটিও করেছে। তাদের বিয়ে হয়েছে ১৬ অক্টোবর। মামাতো-ফুফাতো ভাইবোন হলেও তারা একে-অপরকে পছন্দ করত। দিনশেষে রাত ৮টা নাগাদ মুক্তা বিষপান করে শুয়ে থাকে। স্বামী আল আমিন ঘরে ঢুকে এই অবস্থা দেখে ভড়কে যায়। সে সবাইকে ডেকে আনে। মুক্তাকে হাসপাতালে নেওয়া হয়। কিন্তু অবস্থার কোনো উন্নতি হচ্ছিল না। সকালে ঢাকায় নেওয়ার পথেই মুক্তার মৃত্যু হয়। পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে। এ বিষয়ে অপমৃত্যু মামলা করা হয়েছে।