নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে এক লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে না পেয়ে গভীর রাতে এক মুক্তিযোদ্ধার বাড়িতে হামলা চালিয়েছে সন্ত্রাসীরা। পরে জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯-এ কল করে রক্ষা পায় ওই পরিবার। 

ঘটনাটি ঘটেছে সোমবার রাত ১টার দিকে উপজেলার জিরতলী ইউনিয়নের মহেশপুর গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. সোলেমানের (৭০) বাড়িতে।

অভিযোগে জানা যায়, মো. সোলেমানের কাছে একই গ্রামের মৃত আহছান উল্যার ছেলে সন্ত্রাসী মাহমুদুল হাসান চুন্না (২৬) ও তার ভাই সামছুল আলম বাবু দীর্ঘদিন ধরে এক লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে আসছিল। টাকা দিতে অস্বীকার করলে সন্ত্রাসীরা ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে। 

এর জেরে সোমবার রাত ১টার দিকে মাহমুদুল হাসান চুন্না, সামছুল আলম বাবু, জাকির হোসেন সমীর, সাইফুল ইসলাম বাবুলের নেতৃত্বে ৪০-৪৫ জনের একদল সন্ত্রাসী মুক্তিযোদ্ধার বসতঘরের দরজা ভেঙে ভেতরে ঢুকে ভাঙচুর করে। তারা দুই ভরি স্বর্ণালংকার ও এক লাখ টাকা লুট করে নিয়ে যায়। যাওয়ার সময় সন্ত্রাসীরা বসতঘরের বাইরে থেকে দরজায় তালা ঝুলিয়ে দেয়। তারা ওই মুক্তিযোদ্ধার নির্মাণাধীন পাকা দালানের সদ্য ঢালাই করা ছাদ ভাঙচুর করে। পরে ৯৯৯-এ কল দিলে পুলিশ রাত ৩টায় এসে মুক্তিযোদ্ধার পরিবারকে তালা খুলে উদ্ধার করে।

এ ব্যাপারে বেগমগঞ্জ মডেল থানায় মুক্তিযোদ্ধা মো. সোলেমান বাদী হয়ে চুন্নাকে প্রধান আসামি করে চারজনের নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাতপরিচয় আরও ৩০-৪০ জনের বিরুদ্ধে একটি মামলা করেন। তবে বুধবার বিকেল পর্যন্ত এ ঘটনায় কেউ গ্রেপ্তার হয়নি।

মুক্তিযোদ্ধার পুত্রবধূ হাছিনা বেগম বলেন, এ ঘটনায় মামলা হলেও সন্ত্রাসীরা গ্রেপ্তার না হওয়ায় তারা আতঙ্কে রয়েছেন।

বেগমগঞ্জ মডেল থানার ওসি কামরুজ্জামান সিকদার বলেন, পুলিশ আসামিদের গ্রেপ্তারে অভিযান শুরু করেছে।