রাজশাহী-৪ আসনের সংসদ সদস্য এনামুল হকের তালাকপ্রাপ্ত স্ত্রী আয়েশা আক্তার লিজা সংবাদ সম্মেলন করে তার বিরুদ্ধে করা মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছেন। বুধবার রাতে রাজশাহী নগররে নিউমার্কেট এলাকার একটি রেস্তোরাঁয় বসে তিনি সংবাদ সম্মেলন করেন।

লিজা বলেন, চলতি বছরের ৫ জুন এমপি এনামুলের পক্ষে তার ব্যক্তিগত সহকারী আসাদুজ্জামান আসাদ আমার বিরুদ্ধে বাগমারা থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করেছেন। অভিযোগ তোলা হয়েছে চাঁদা না দেওয়ায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছবি দিয়ে এমপির বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালানো হয়েছে। কিন্তু কোনো চাঁদা চাওয়ার ঘটনা ঘটেনি। এ অভিযোগ অস্বীকার করেন তিনি।

লিজার দাবি, তিনি এখনও এমপি এনামুলের দ্বিতীয় স্ত্রী। অধিকার আদায়ের জন্য প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করে বিয়ের প্রমাণ হিসেবে তিনি স্বামী-স্ত্রীর শালীন ছবি প্রকাশ করেছেন। কোনো চাঁদা চাওয়ার ঘটনা ঘটেনি। তিনি এ মামলা প্রত্যাহারের দাবি করেন।

লিজা বলেন, ওই মামলায় উচ্চ আদালত থেকে তিনি চার মাসের অন্তর্বর্তীকালীন জামিন নিয়েছিলেন। সেই সময় শেষ হওয়ায় বৃহস্পতিবার নিম্ন আদালতে আত্মসমর্পণ করবেন। কিন্তু আদালতে জামিন নিতে তিনি হাজির হলেও দলীয় আইনজীবীরা এমপি এনামুলের পক্ষ নিয়ে বিরোধিতা করছেন। এমনকি জামিনের বেলবন্ডও দিচ্ছেন না।

সম্প্রতি এমপি এনামুলের বিরুদ্ধে গোপনে বিয়ে করে প্রতারণা ও ভ্রুণ হত্যার অভিযোগ করে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেন লিজা। তার বক্তব্য ছিল, ২০১২ সালে এমপি এনামুল হকের সঙ্গে তার পরিচয়। এরপর পরিণয়। ২০১৩ সালের ৩০ এপ্রিল তারা ধর্মীয় বিধিমতে পারিবারিকভাবে বিয়ে করেন। দীর্ঘদিন সংসার করার পর ২০১৮ সালের ১১ মে বিয়ের নিবন্ধন করেন। বিয়ে করলেও শুরু থেকেই স্ত্রী হিসেবে স্বীকৃতি দিতে গড়িমসি করে আসছিলেন এমপি এনামুল।

এ নিয়ে সংসদ সদস্য এনামুল বলেন, গত ২৪ এপ্রিল আমি লিজাকে ডিভোর্স দিয়েছি। এরপর সে আমার কাছ থেকে ২৫ লাখ টাকা নিয়েছে। এই টাকা নেওয়ার ডকুমেন্টস আমার কাছে আছে। টাকা ফেরত দিলেই মামলা প্রত্যাহার করা হবে।