মাগুরায় স্বামীকে গাছের সঙ্গে বেঁধে রেখে স্ত্রীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। শনিবার রাত ৮টার দিকে সদর উপজেলার জাগলা গ্রামের একটি মাঠে এ ঘটনা ঘটে। এ বিষয়ে অজ্ঞাত পাঁচজনকে আসামি করে রোববার দুপুরে সদর থানায় মামলা করেছেন ভুক্তভোগী ওই নারী।

তার স্বামী বলেন, আমি ও আমার স্ত্রী বিভিন্ন গ্রামে গিয়ে ঘোড়ার গাড়ির মাধ্যমে ধান সংগ্রহের কাজ করি। ২০ দিন আগে ধান সংগ্রহ করার জন্য ঝিনাইদহের শৈলকূপা উপজেলার বইনদেখালী থেকে মাগুরা সদরের জাগলা গ্রামে আসি। নিজের কোনো থাকার জায়গা না থাকায় আমরা জাগলা এলাকার মাঠে পলিথিনের তাঁবু খাটিয়ে থাকি। শনিবার রাতে অপরিচিত পাঁচজন ধারালো অস্ত্র নিয়ে আমাদের ওপর চড়াও হয় এবং মেরে ফেলার হুমকি দেয়। এ সময় তারা আমাকে একটি গাছের সঙ্গে বেঁধে রাখে এবং স্ত্রীকে পার্শ্ববর্তী একটি পুকুরের কাছে নিয়ে ধর্ষণ করে।

তিনি আরও জানান, এ সময় তার কাছে থাকা পাঁচ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেয় নির্যাতনকারীরা। ধর্ষণ শেষে কাউকে কিছু না জানানোর হুমকি দিয়ে ঘটনাস্থল ত্যাগ করে তারা। পরে চিৎকার দিলে এলাকার লোকজন তাদের উদ্ধার করে।

মাগুরা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জয়নাল আবেদীন জানান, ধর্ষণের শিকার ওই নারী রোববার মাগুরা সদর থানায় অজ্ঞাতনামা পাঁচজনকে আসামি করে  মামলা করেছেন। তার ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে। আসামিদের গ্রেপ্তারে চেষ্টা চলছে।

বিষয় : মাগুরা ধর্ষণ সংঘবদ্ধ ধর্ষণ

মন্তব্য করুন