বাউফলের কালিশুরি স্লোব ক্লিনিকে ভুল অস্ত্রোপচারের পর পালিয়ে গেছেন এক চিকিৎসক। এ ঘটনার পর অনেক সময় ধরে চিকিৎসককে খুঁজে না পেয়ে রোগীর অস্ত্রোপচারের স্থান নার্সরা সেলাই করে ক্লিনিকের বিছানায় ফেলে রাখেন।

ভুক্তভোগী গৃহবধূর নাম সাহিদা বেগম (৪৫)। তার স্বামী কৃষক শহিদুল ইসলাম। রোববার সন্ধ্যার এ ঘটনায় রোগীর অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে তার স্বামী জানান।

জানা যায়, উপজেলার কেশবপুর ইউনিয়নের মমিনপুরের শহিদুল ইসলামের স্ত্রী সাহিদা কিছুদিন ধরে জরায়ুর সমস্যায় ভুগছিলেন। প্রচণ্ড ব্যথা উঠলে গত শনিবার বিকেলে তাকে কালিশুরির স্লোব নামের একটি ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসক আহম্মেদ কামাল তুষার পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে ১৫ হাজার টাকায় চিকিৎসার চুক্তি করেন। রোববার গৃহবধূর জরায়ুর টিউমারের অস্ত্রোপচার করা হয়। এ সময় তিনি জরায়ু কেটে ফেলেন এবং অবস্থা বেগতিক দেখে অস্ত্রোপচার অসম্পন্ন রেখেই পালিয়ে যান। কর্তব্যরত নার্সরা চিকিৎসককে না পেয়ে কাটা স্থান সেলাই করেন।

চিকিৎসক আহম্মেদ কামাল তুষার দীর্ঘদিন ধরে কালিশুরিতে গজিয়ে ওঠা তিনটি ক্লিনিকে রোগীদের বিভিন্ন ধরনের অস্ত্রোপচার ও চিকিৎসা দিয়ে আসছিলেন। তিনি চটকদার সাইনবোর্ড লাগিয়ে গাইনিসহ নানা রোগের চিকিৎসা করতেন।

এ বিষয়ে গৃহবধূর স্বামী শহিদুল ইসলাম বলেন, তার স্ত্রীকে ভুয়া চিকিৎসক টাকা নিয়ে পেট কেটে পালিয়েছেন। এ বিষয়ে চিকিৎসক আহম্মেদ তুষারের বক্তব্য নিতে বারবার তার মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করলেও সেটি বন্ধ পাওয়া যায়।

বিষয় : অস্ত্রোপচার বাউফল

মন্তব্য করুন